রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের জেলা উন্নয়ন কমিটির সমন্বয় সভা

স্টাফ রিপোর্টার,হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

hdc
বুধবার রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের জেলা উন্নয়ন কমিটির সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জেলা পরিষদ সন্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন রাঙামাটি পার্বত্যজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা। পরিষদের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম জাকির হোসেনর পরিচানায় অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সাইফ উদ্দিন আহম্মদ, সদর সার্কেল সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার চিত্ত রঞ্জন পাল, সিভিল সার্জন ডাঃ ¯েœহ কান্তি চাকমা, পরিষদের নির্বাহী প্রকৌশলী দীলিপ কুমার চাকমা, হেডম্যান এসোসিয়েশনের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক থোয়াই অং মারমা’সহ জেলার বিভিন্ন বিভাগীয় প্রধান, সাংবাদিক ও কমিটির সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা।

সভায় রাঙ্গামাটি সরকারী কলেজের প্রভাষক জানান, কলেজে অনার্স ভর্তি কার্যক্রম প্রায় শেষ পর্যায়ে এবং অন্যনো অফিসের কার্যক্রম স্বাভাবিক ভাবে চলছে।

রাঙামাটি পৌরসভার প্রতিনিধি জানান,বর্তমানে ৩কোটি ৫লক্ষ টাকা ব্যয়ে পৌরসভার ভবনটি নির্মাণের কাজ চলছে। জেলার বিভিন্ন জায়গার উন্নয়নের জন্য ১৫কোটি টাকার একটি আরবান গর্ভরনেন্স প্রজেক্ট প্রফোজাল মন্ত্রনালয়ে পাঠানো হয়েছে অনুমোদন হলে কাজ শুরু করা হবে। এছাড়া টিভি ও বেতারের কার্যালয়ের সম্মুখে পৌরসভা কর্তৃক যাত্রী ছাউনি নির্মাণ করা হবে। সভায় সরকারী সংস্থার উপস্থিত কর্মকর্তাগন তাদের স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানের সম্ভাবনা ও সমস্যার কথা তুলে ধরেন।

কাপ্তাই উপজেলার ইউপি চেয়ারম্যান বলেন, কাপ্তাই লেকে পানি বৃদ্ধি ও হ্রাসের পরিবেশে অনেকে জলে ভাসা জমিতে চাষ করে থাকে কিন্তু বর্তমান পরিবেশ পরিস্থিতীর কারণে এখনো বুঝা যাচ্ছেনা পানির স্তর কতটুকু। তাই প্রতিমাসে পানি বৃদ্ধি ও হ্রাসের পরিমাপ সম্পর্কে জন প্রতিনিধিদের অবহিত করা হলে সংবাদটি চাষীদের জানাতে সুবিধা হবে। এ বিষয়ে তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানান।

রাঙামাটি বেতারের প্রতিনিধি জানান, বর্তমানে ক্রিকেট বিশ্বকাপের ধারাভাষ্য রাঙামাটির এফএম ১০৩.২ মেগাহার্টসে শোনা যাচ্ছে ক্রিকেট প্রেমীদের শোনার জন্য আহ্বান জানান।

সভায় ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেনাসের পক্ষ থেকে জানানো হয় এর সহকারী পরিচালক বলেন, বাঘাইছড়িতে জায়গা নিধারণ না হওয়ায় ফায়ার স্টেশন করতে বিলম্ব হচ্ছে কাউখালীর ফায়ার স্টেশনের কাজ চলছে এবং রাজস্থলীতে ফায়ার স্টেশনের জন্য অনুমোদন হয়েছে।

রোভার স্কাউটস সম্পাদক বলেন, রাঙামাটির স্কাউটস্ ভবনের সম্মুখে বর্তমানে বড় বড় গাড়ীগুলো পার্কিং করা হচ্ছে বিধায় পাশের বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের চলাফেরা করতে সমস্যা হচ্ছে এবং রাজবাড়ী স-মিলের অপরদিকে এক ব্যাবসায়ী অবৈধভাবে ফুটপাতের উপর বালি ইট ও কংকর’সহ অন্যনো মালামাল রাখাতে জন সাধারণের চলাচলের জন্য অসুবিধা হচ্ছে। এ বিষয়গুলো সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে দেখার জন্য অনুরোধ জানান। এছাড়া জাতীয় পর্যায়ে স্কাউটসদের জাম্বুরী প্রশিক্ষণের বিষয়টি বর্তমান হরতাল অবরোধ পরিস্থিতির কারণে জেলা পর্যায়ে করার প্রস্তুতি চলছে।

টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টারের কর্মকর্তা বলেন, বর্তমানে ড্রাইভিং, সেলাই ও ইন্ড্রাট্রিয়াল প্রশিক্ষণ প্রদান কার্যক্রম চলছে এবং প্রতিষ্ঠান প্রধানদের সুবিধার্থে ২মাসব্যাপী ২ হাজার টাকায় ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ কোর্স চালু করতে যাচ্ছে ইচ্ছু কর্মকর্তাগন ভর্তির জন্য ফরম সংগ্রহের জন্য অনুরোধ জানান।

সিএইচটিডিএফ-ইউএনডিপির পক্ষ থেকে জানানো হয়,রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ- সিএইচটিডিএফ-ইউএনডিপির যৌথ প্রকল্পের আওতায় প্রি-প্রাইমারী শিক্ষা কার্যক্রম ও মোবাইল ক্লিনিক কার্যক্রম চলমান রয়েছে। এছাড়া কমিউনিটি পুলিশদেরকে সহযোগিতা প্রদান করে যাচ্ছে।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জানান, ৩২৫জন শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তী পত্র পত্রিকায় প্রকাশ করা হয়েছে আগামী ১৫ মার্চ পর্যন্ত আবেদন গ্রহণ করা হবে।

সভায় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সাইফ উদ্দীন আহমেদ বলেন, জেলার আইন শৃংখলার পাশাপাশি এখানকার জনগনের জানমাল ও শান্তি রক্ষায় প্রশাসন সবসময় নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে এবং আগামীতেও করবে। রাঙামাটিকে গ্রীণ ও ক্লিন রাখতে সকলের সচেতনেতা ও প্রচারনা বাড়াতে হবে।এছাড়া সভায় উপস্থাপিত সকল প্রশাসনিক বিষয়গুলো গুরুত্বের সাথে দেখা হবে বলে জানান।

সভায় পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান বলেন, আইন শৃংখলা পরিস্থিতি ভালো থাকলে উন্নয়ন বৃদ্ধি পাবে। তাই আইন শৃংখলা পরিস্থিতি ভালো রাখতে প্রশাসনের পাশাপাশি জন প্রতিনিধি ও জনগনকে সহযোগিতা করতে হবে। তিনি গুজবে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি না করে প্রকৃত ঘটনার তথ্যের জন্য প্রয়োজনে প্রশাসনের মুঠো ফোনে যোগাযোগ করার জন্য পরামর্শ দেন। তিনি সকলের সমন্বিত সমন্বয়ে রাঙ্গামাটির উন্নয়নে সকলকে সহযোগিতা ও এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

সভাপতির বক্তব্যে পরিষদ চেয়ারম্যান নিখিল কুমার বলেন, উন্নয়নের পূর্বশর্ত হল শান্তি-শৃংখলা। শান্তি- শৃংখলার মাধ্যমে পার্বত্য এলাকার আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে সবাইকে নিরলসভাবে কাজ করতে হবে। তিনি আরও বলেন, রাঙামাটি জেলায় বসবাসরত মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে যে সকল কর্মকান্ড আমাদের করা উচিত আমরা সকলের সমন্বয়ে তা করবো। তাই সরকারের পাশাপাশি সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার তিনি আহ্বান জানান।

–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly