রোয়াংছড়ির পাগলাছড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবণ নির্মাণ শেষ হওয়ার পর পরই পরিত্যক্ত ঘোষনা

বান্দরবান প্রতিনিধি,হিলবিডি টোয়েন্টিফোর ডটকম

bandarban school pic-1

বান্দরবানের রোয়াংছড়ি উপজেলার পাগালাছড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনের নির্মাণ শেষ হওয়ার পর পরই দেওয়াল ও ছাদে  ফাটল ধরায় পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছে।  সম্প্রতি উপজেলা সদর থেকে পাঁচ কিলোমিটার দুরে পাগলাছড়ায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে ২০১০ সালে ১৯ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত পাগালাছড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবণের দেওয়ালে ও ছাদে বড় বড় ফাটল দেখা দিয়েছে। ফলে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবণটি নির্মান শেষ হওয়ার পরই পরিত্যক্ত ও ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করতে বাধ্য হয়েছে। বর্তমানে পাড়াবাসিদের নির্মিত বেড়ার ঘরে শিা কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। এতে শিার্থীরা একটি কে গাদাগাদি করে পাঠ গ্রহন করছে। এতেও সামান্য বৃষ্টি হলে পানি পড়ছে। সরেজমিনের সময়  উপজেলা প্রকৌশলী ও ঠিকাদার বিষয়টি পত্রিকায় প্রকাশ না করার অনুরোধ জানিয়ে এ প্রতিবেদকে জানান অন্য একটি বিদ্যালয় ভবণ নির্মানের জন্য মন্ত্রণালয়ে অনুমোদন চাওয়া হয়েছে। তাই বিষয়টি প্রকাশিত হলে প্রকল্প অনুমোদনে সমস্যা হবে।

bandarban school pic-2

বিদ্যালয়ের শিক্ষক যুদ্ধসেন তংচংগ্যা ও রুম্পা দত্ত জানান নব নির্মিত বিশাল ভবণের পাশে বাঁশের বেড়ার ভাঙ্গা ঘরে পাঠদানে কষ্টকর হচ্ছে। তাদের মতে, বিদ্যালয়ের ন্যুনতম পরিবেশ না থাকায় শিার্থীরা পড়াশুনায় আগ্রহী হচ্ছে না। এদিকে নির্মানকারি ঠিকাদার মো. নূরু বিদ্যালয় ভবণ নির্মাণে দ্রুতির কথা অস্বীকার করেছেন। পাগলাছড়া ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য গোপাল কান্তি তংচংগ্যা জানান,নিনমানের কাজের কারণে ভবণটি যে কোনো মুহুর্তে ধসে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। এজন্য পাড়াবাসি গাছের ঠেস দিয়ে ধসে পড়া থেকে রার চেষ্টা চালাচ্ছে।উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কামাল হোসেন জানান দুর্বল নির্মাণ শৈলীর ভবণ গাছের ঠেস দিয়ে রাখা সম্ভব নয়। এটি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় তাই পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছে।
উপজেলা প্রকৌশলী মনমোহন দাশ বিদ্যালয়টি নির্মাণের পরেই তিনি বদলি হয়ে এসেছে দাবি করে জানান প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন প্রকল্পের (পিইডিপি-২) ভবণটি ভেঙ্গে পিইডিপি-৩ থেকে আরেকটি ভবণ নির্মানের প্রক্রিয়া চলছে। নির্মিত ভবণটি কেন এ রকম হয়েছে তার জানা নেই বলে তিনি জানান।
 –হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly