রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

স্টাফ রিপোর্টার,হিলবিডিটোয়েন্টিফো ডটকম

kk

রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের রোববার মাসিক সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

পরিষদ সন্মেলন কক্ষে সভায় সভাপতিত্ব করেন পরিষদ চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা। পরিষদের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম জাকির হোসেনের পরিচালনায় এ সময় অন্যান্যর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পরিষদের সদস্য বৃষকেতু চাকমা, শামিমা রশিদ, অভিলাষ তংচংগ্যা, নির্বাহী প্রকৌশলী দিলীপ কুমার চাকমাসহ হস্তান্তরিত বিভাগের কর্মকর্তারা।

সভায় সিভিল সার্জন ডা. মোস্তাফিজুর রহমান সম্প্রতি পার্বত্য তিন জেলায় ম্যালেরিয়ার প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় মানুষদের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে স্বাস্থ্য বিভাগ হতে জেলার একশটি বাজারে সচেতনতামূলক বার্তা প্রচারে মাসব্যাপী মাইকিং করা হচ্ছে এবং দুর্গম অঞ্চলে ১৫টি স্পেশাল টিম কাজ করছে। বর্তমানে ওষুধযুক্ত ৫ হাজার মশারি মজুদ রয়েছে যা খুব শীঘ্রই জনসাধারণের মাঝে বিতরণ করা হবে। এছাড়া আরও ৬৭ হাজার মশারি আসার সম্ভাবনা রয়েছে।

পরিষদ চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা বলেছেন পাহাড়ের অবহেলিত এলাকার মানুষের স্বাস্থ্য, শিক্ষা, চিকিৎসা, আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন করাই হবে আমাদের প্রধান কাজ। তাই হস্তান্তরিত বিভাগসহ উন্নয়ন সংস্থাগুলোকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।

তিনি আরও বলেন, জেলায় প্রতি বছর কাপ্তাই লেকে যে সমস্ত মাছের পোনা অবমুক্ত করা হয় সে সমস্ত পোনা যেন স্থানীয়ভাবে এ এলাকা থেকে ক্রয় করা হয় তার প্রস্তাব রাখেন তিনি। তিনি বলেন, এতে করে একদিকে গাড়ী ভাড়ার খরচটা যেমন ঠিকাদারদের কমবে। অন্যদিকে স্থানীয় পোনা উৎপাদনে চাষীরা লাভবান ও উৎসাহী হবে।

পরিষদ চেয়ারম্যান জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী বিভাগের কর্মকর্তাকে বলেন, উঁচু স্থানে পানির ট্যাংক করে পানি সাপ্লাইয়ের জন্য প্রকল্প গ্রহণের পরামর্শ প্রদান করেন। তিনি বলেন এতে করে পানি উঁচু ট্যাংকে তোলার ক্ষেত্রে বিদ্যুৎ ব্যয় হবে কিন্তু বিতরণের ক্ষেত্রে বিদ্যুৎ ব্যয় হবে না। তিনি অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ দূর করে স্বাস্থ্যকর পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে রাঙ্গামাটি জেনারেল হাসপাতালের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের বিষয়টি গুরুত্বের সাথে নিয়ে পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য সিভিল সার্জনকে নির্দেশ দেন।

তিনি জেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যে সমস্ত শিক্ষক সঠিকভাবে বিদ্যালয়ে যান না এবং তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে তাদের বিষয়ে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন। পাশাপাশি ৭ম ও ৮ম শ্রেণীর বৃত্তি প্রদান কার্যক্রম একসাথে প্রদান, জরাজীর্ণ বিদ্যালয়গুলো মেরামতের জন্য প্রকল্প গ্রহণ ও যে সমস্ত বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষক সংকট রয়েছে সেসমস্ত বিদ্যালয়ে খন্ডকালীন যোগ্য শিক্ষক নিয়োগের জন্য মাধ্যমিক শিক্ষা বিভাগের কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন চেয়ারম্যান। এছাড়া জেলা জুনিয়র গোল্ডকাপ টুর্নামেন্ট দ্রুত শুরু করার বিষয়ে তিনি জেলা ক্রীড়া কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন।
–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly