রাঙামাটি পাবলিক কলেজের আনুষ্ঠানিকভাবে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু

স্টাফ রিপোর্টার, হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

Rangamati Public Collage Pic_0

রাঙামাটি পাবলিক কলেজের আনুষ্ঠানিকভাবে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার নব প্রতিষ্ঠিত এই কলেজের আনুষ্ঠানিকভাবে শিক্ষার কার্যক্রম ঘোষনা করা হয়।

শহরের তবলছড়িস্থ রাঙামাটি পাবলিক কলেজের অস্থায়ী ভবনে শিক্ষা কার্যক্রম শুভ সূচনা উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ও গভর্নিং বডির সভাপতি জেলা প্রশাসক মোঃ মোস্তফা কামাল। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সাবেক প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার। বিশেষ অতিথি ছিলেন পুলিশ সুপার আমেনা বেগম, রাঙামাটি পৌর মেয়র সাইফুল ইসলাম চৌধুরী ভূট্টো ও বিশিষ্ট চিকিৎসক ডা: একে দেওয়ান । অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন রাঙামাটি পাবলিক কলেজের অধ্যক্ষ তাসাদ্দিক হোসেন কবীর। অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, শিক্ষক, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করেন।

সভাপতির বক্তব্যে কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ও জেলা প্রশাসক জেলা প্রশাসক মোঃ মোস্তফা কামাল বলেন, কলেজের জন্য জায়গা নির্ধারণ করা হয়েছে আসামবস্তী নারকেল বাগানে। জমির পরিমাণ তিন একর। সম্প্রতি পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর এমপি, সচিব নববিক্রম কিশোর ত্রিপুরা ও মহিলা এমপি ফিরোজা বেগম চিনু কলেজটির ভিত্তিপ্রস্তুর স্থাপন করেন। ভবন নির্মাণ শেষ না হওয়া পর্যন্ত আপাতত কলেজের শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে শহরের তবলছড়ি মিনিস্ট্রিয়াল ক্লাবে। ভবন নির্মাণে প্রায় আট কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন, রাজনীতি করতে বাধা নেই। তবে এ কলেজে কোনো রাজনীতি করা যাবে না। এটি হবে রাজনীতিমুক্ত একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। কেউ রাজনীতি করতে চাইলে বাইরে করতে পারে। কিন্তু কলেজের ভেতর কেউ কোনো রাজনীতি করতে পারবে না। কলেজে রাজনীতি পড়ানো হবে রাষ্ট্র বিজ্ঞানে। কাজেই এখানে আলাদা করে আর রাজনীতির সুযোগ থাকবে না। জেলা প্রশাসকর আরও বলেন, প্রথম বর্ষে তিনশ’ শিক্ষার্থী নিয়ে রাঙামাটি পাবলিক কলেজের যাত্রা। এর মধ্যে শিক্ষক নিয়োগ ও প্রথম বর্ষে ভর্তি কার্যক্রম সম্পন্ন হয়েছে। কলেজে নিয়োগ দেয়া হয়েছে দক্ষ ও মেধাবি শিক্ষকমন্ডলী। কিছু দিনের মধ্যে আরও কয়েক শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে। এখন থেকে শিক্ষা কার্যক্রম পুরোদমে চলবে। কিছু দিনের মধ্যে পাঠদান কার্যক্রমের অনুমতি পাওয়া যাবে। কলেজের তিন একর জমির বন্দোবস্তু প্রক্রিয়াও চূড়ান্ত পর্যায়ে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাবেক প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার বলেন, শুরু যখন হয়েছে কলেজটি এগিয়ে যাবে উন্নতির পথে। জেলা প্রশাসক মোঃ মোস্তফা কামাল চলে যাবেন। কিন্তু কলেজটি নিয়ে যাবেন না। কলেজটি থাকবে এখানকার মানুষের। পড়ালেখা করবে এখানকার সন্তানেরা। আর এর অবদান জেলা প্রশাসক মোঃ মোস্তফা কামালের।

তিনি রাঙামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং মেডিকেল কলেজ স্থাপনে কিছু মহল বাধা সৃষ্টি করছে উল্লেখ করে বলেন, রাঙামাটি পাবলিক কলেজ স্থাপন নিয়ে নানা কথাবার্তা বলা হচ্ছে। কিন্তু এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম কখনও বসে থাকবে না। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় এগুলোকে এগিয়ে নিতে হবে উন্নত শিক্ষাব্যবস্থা গঠনে।
–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly