রাঙামাটির নানিয়ারচরে আনারস বাগানের চারা কেটে দেয়াকে কেন্দ্র করে পাহাড়ীদের ৫৭টি বসতবাড়ীতে অগ্নিসংযোগ

স্টাফ রিপোর্টার,হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

11

আনারস বাগানের চারা কেটে দেয়াকে কেন্দ্র করে পাহাড়ীদের তিনটি গ্রামের ৫৭টি দোকান ও বসতবাড়ি আগুনে পুড়ে দিয়েছে দুর্বত্তরা। মঙ্গলবার নানিয়ারচর উপজেলার বুড়িঘাট ইউনিয়নের সুরিদাশ পাড়া, নবীন তালুকদার পাড়া,বগাছড়ি পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে।

জানা গেছে, সোমবার দিবাগত রাতে একদল দুর্বৃত্ত শক্রতাবশত রাঙামাটি-খাগড়াছড়ি সড়কের পাশে সুরিদাশ ও তরুনী পাড়া এলাকায় পুর্ণবাসিত বাঙালীদের আনারস বাগানে চারা গাছ কেটে দেয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে পুর্ণবাসিত বাঙালীরা তিনটি পাহাড়ী গ্রাম সুরিদাশ পাড়া, বগাছড়ি ও নবীন তালুকদার পাড়ায় অগ্নিসংযোগ করে। এতে ৫০টি বসত বাড়ি ও ৭টি দোকান সম্পুর্ন ভীস্মভূত হয়। পুড়ে যাওয়া বাড়িগুলোর মধ্যে নীবন তালুকদার পাড়ায় ৬টি, বগাছড়ি ৭টি, সুরিদাশ পাড়ায় ৩৭ টি এবং ১৪ মাইল এলাকায় ৭টি দোকান সম্পুর্ণ পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

এছাড়া অগ্নিসংযোগকারীরা করুনা বন বিহারের ভাংচুর ও ৫টি পিতলের বুদ্ধ মূর্তি লুঠ করে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ করা হয়েছে। ঘটনার খবর পেয়ে সেনা বাহিনী ও পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন আনেন। এ ঘটনায় তাৎক্ষনিক রাঙামাটি-খাগড়াছড়ি রুটে সড়ক চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র এলাকায় ক্ষোভ বিরাজ করছে।

hill6

আনারস বাগানে চারা কেটে দেয়া এবং বসতবাড়ী ও দোকান ঘরে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় পরষ্পর অভিযোগ করা হয়েছে। সুরিদাশ পাড়ার ক্ষতিগ্রস্থ চঞ্চনা চাকমা, চক্কে মনি চাকমা, মতিলাল চাকমা অভিযোগ করেছেন, একদল পুর্নবাসিত বাঙালীরা পাহাড়ীদের গ্রামে ঢুকে বাড়ী ঘরে আগুন লাগিয়ে দেয়। এ সময় তারা প্রাণের ভয়ে পালিয়ে যায়। তারা জানায়, সবে মাত্র ধান্য জমি বাড়ীতে তুলেছেন। ধান ও বাড়ীতে রাখা সম্পতি সম্পুর্ন আগুনে পুড়ে গেছে। আমরা এখন কি নিয়ে বাচঁবো। আনারস বাগানের ক্ষতিগ্রস্থ বাঙালী মো: আফসার আলী, নুরুল ইসলাম, কামাল হোসেন ও জামাল হোসেন অভিযোগ করেছেন নিজেদের জমিতে লাগানো আনারস বাগানের চারা কেটে দিয়েছে পাহাড়ীরা। ঢাকা থেকে ঋনের টাকা নিয়ে আনারস বাগানের চাষ করেছেন। চারা গাছ কেটে ফেলায় কিভাবে তারা এখন ঋনের টাকা পরিশোধ করবেন বুঝে উঠতে পারছেন না।

বুড়িঘাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রমোদ বিকাশ খীসা জানান,বগাছড়ি এলাকার মো: আফসার আলী গত বছর সুরিদাশ পাড়ায় বির্তকিত জায়গায় আনারস রোপন করে। গত সোমবার এই আনারস বাগানটি পাহাড়িরা কেটে দিয়েছে এমন অভিযোগ করে মঙ্গলবার সকালে শতাধিক পুর্ণবাসিত বাঙালীরা বগাছড়িতে জড়ো হয়ে প্রথমে রাঙামাট-খাগড়াছড়ি সড়কে ১৪ মাইলে অবস্থিত চাকমাদের ৭টি দোকান পুড়িয়ে দেয়। এরপর তারা পার্শ্ববর্তী সুরিদাশ পাড়া, নবীন তালুকদার পাড়া ও বগাছড়ি পাড়ায় ঢুকে ঘরবাড়িতেও আগুন ধরিয়ে দেয় এবং লুটপাট চালায়। আগুনে ৭টি দোকানসহ সর্বমোট ৫৭টি ঘর পুড়ে দেওয়া হয়েছে। পুড়ে যাওয়া বাড়িগুলোর মধ্যে নীবন তালুকদার পাড়ায় ৬টি, বগাছড়ি ৭টি, সুরিদাশ পাড়ায় ৩৭ টি এবং ১৪ মাইল এলাকায় ৭টি দোকান সম্পুর্ণ পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এই ঘটনায় মঙ্গলবার সারাদিন খাগড়াছড়ি- রাঙামাটি আঞ্চলিক মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ ছিল।

hill9

এদিকে, ঘটনার খবর পেয়ে জেলা প্রশাসক মো. মোস্তফা কামাল, পুলিশ সুপার আমেনা বেগম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল কালাম আজাদ, নানিয়ারচর সেনা জোন কমান্ডার লে.কর্নেল সোহেল আহমদ চৌধুরী,নানিয়ারচর উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. শক্তিমান চাকমা, নানিয়ারচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নূরুজ্জামান, বুড়িঘাট ইউপি চেয়ারম্যান প্রমোদ বিকাশ খীসা, ঘিলঅছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান সন্তুু চাকমা, উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা ত্রিদিব কান্তি দাশ, বিএনপি নেতা এজাজ নবীসহ প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

পরিদর্শনের সময় সুরিদাস পাড়ায় এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করা হয়। সংক্ষিপ্ত সমাবেশ বক্তব্যে দেন জেলা প্রশাসক মোস্তফা কামাল, পুলিশ সুপার আমেনা বেগম, নানিয়ারচর সেনা জোন কমান্ডার লে.কর্নেল সোহেল আহমদ চৌধুরী,নানিয়ারচর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এ্যাড. শক্তিমান চাকমা। এসময় তারা পাহাড়ী-বাঙালী উভয়কে এলাকার পরিস্থিতি শান্ত ও ধৈর্য্য ধরার আহ্বান জানান এবং ক্ষতিপূরনের আশ্বাস দেন। পাশাপাশি দুস্কৃতকারীদের আইনের আওতায় আনার আশ্বাস দেন।

এ সময় জেলা প্রশাসক অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ ৪৫টি পাহাড়ী পরিবারকে নগদ ১ লাখ টাকার সহায়তা, পরিবার প্রতি ২টি কম্বল ও ঢেউটিন ১ বান্ডিল দেয়ার ঘোষনা দেন। তিনি এ ঘটনায় নানিয়ারচর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শক্তিমান চাকমাকে আহ্বায়ক করে ১১ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে দেন। এ তদন্ত কমিটি পাহাড়ী-বাঙলীদের নিয়ে সামাজিক বিচার করবেন এবং সমাধান করে লিখিত রিপোর্ট প্রশাসনের কাছে জমা দেবে এবং শান্তি ফিরে আনবেন।

জেলা প্রশাসক বলেন, এ ঘটনা কারা ঘটিয়েছে আমরা সবাই জানি। কারা আনারস চারা কেটেছে এবং কারা বাড়ীঘরে আগুন লাগিয়েছে তাদের নাম আমরা ইতোমধ্যে পেয়েছি। তাদের বিরুদ্ধে মামলা হবে এবং তাদের গ্রেফতার করা হবে।

জেলা প্রশাসক আরও বলেন, এখানে এসে শুনলাম সেনা বাহিনীকে নিয়ে কেউ কেউ কথা বলার চেষ্টা করছেন। সেনা বাহিনী এখানে সবার নিরাপত্তার জন্য আসে। সেনা বাহিনী কারোর প্রতিপক্ষ না, কারোর বন্ধু না। এখানে সেনাবাহিনীর জন্য কোন পাহাড়ী নেই, কোন বাঙালী নেই। সেনা বাহিনী সবার বাহিনী। সুতরাং আইন-শৃংখলা বাহিনী সবার বাহিনী। এখানে যত আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী পুলিশ-বিজিবি-সেনাবাহিনী-আনসার যারাই আসেন না কেন সবাইয়ের নিরাপত্তা দেখবেন।

তিনি দুস্কৃতকারীদের কোনভাবে প্রশয় না দেয়ার জন্য সবাইকে আহ্বান জানিয়ে বলেন, এলাকায় উত্তেজনা সৃষ্টি করে এমন কথা না বলবেন না। রাতের অন্ধকারে ঘটুক আর দিনের বেলায় ঘটুক যারা এ কাজ করেছে সে যেই হোক তাদের খুজে বের করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে। কেউই পাড় পাবে না। কারা এ কাজ করেছে পুলিশ তদন্ত করে বের করবে। অগ্নিসংযোগ ও আনারস চারা নষ্ট করেছে সেই দৃস্কৃতকারীদের বিরুদ্ধে অবশ্যই মামলা হবে।

hill

তিনি সাড়ে চার লাখ আনারসের চারা এবং ২০ হাজার সেগুন চারা ক্ষতিগ্রস্থদের কৃষি অফিসের মাধ্যমে ক্ষতিপূরণ নিরুপন করার হবে বলে জানান।

পুলিশ সুপার আমেনা বেগম বলেন, কোন একটি কুচক্রিমহল নীল নক্সা তৈরী করে এ জায়গা শান্তি বিনষ্ট করার চেষ্টা করছে। এ ঘটনা প্রশাসন কিছুতেই ঘটতে দেবে না। তিনি সবাইয়ের সহযোগিতা কামনা করে কুচক্রি মহলের বিরুদ্ধে রুখে দাড়ানোর আহ্বান জানিয়ে আরও বলেন, কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে মামলা রজু করা হবে। তিনি আইন নিজের হাতে তুলে না নেয়ার আহ্বান জানিয়ে সবাইকে ধৈর্য্য ধরতে অনুরোধ জানান্।

নানিয়ারচর সেনা জোন কমান্ডার লেঃকর্নেল সোহেল আহম্মেদ,চৌধুরী, আজকে বিজয় দিবসের দিনে যে অনাকাংখিত ঘটনা ঘটেছে তা পাহাড়ী-বাঙালীর রং ছড়ানোর প্রয়োজন নেই। এটি একটি সম্পুর্ন সন্ত্রাসী কার্যক্রম। সকাল বেলায় বাঙালীদের আনারস বাগানের চারা কেটে ফেলার কেন্দ্র করে এখানে খুব অল্প সময়ের মধ্যে একটা দাঙ্গাছড়িয়ে পড়ে। সেনা বাহিনী টহল তাৎক্ষনিকভাবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এখানে যে বৌদ্ধ মন্দির ছিল সেনা বাহিনীর সদস্যরা মন্দিরটি সম্পুর্ন কর্তন করে রাখে এবং বাকী যে আরও ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারতো তা রক্ষা করা হয়েছে। সেনা বাহিনী শান্তি সম্প্রীতি বজায় রাখার চেষ্টার চালিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি সবাইকে ধের্য্য ধরতে ও সবাইয়ের সহযোগিতা কামনা করেন।
–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly