রাঙামাটিতে সেনা বাহিনীর ৫৬ বেঙ্গল রেজিমেন্টকে ঐতিহ্যবাহী রেজিমেন্টাল কালার প্যারেডে পতাকা প্রদান

 ষ্টাফ রিপোর্টার,হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

h1

বাংলাদেশ সেনা বাহিনীর অধীনে নব গঠিত ৫৬ বেঙ্গল রেজিমেন্টকে ঐতিহ্যবাহী রেজিমেন্টাল কালার প্যারেডে পতাকা অনুষ্ঠানিকভাবে প্রদান করা হয়েছে। এ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার রাঙামাটিতে কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

রাঙামাটি সদর জোন মাঠে ৫৬ বেঙ্গল রেজিমেন্টকে ঐতিহ্যবাহী রেজিমেন্টাল কালার প্যারেডে পতাকা অনুষ্ঠানিকভাবে প্রদান করেন ২৪ পদাধিক ভিডিশনের চট্টগ্রামের  জিওসি মেজর জেনারেল সাব্বির আহমেদ এসজিপি,এনডিসি,পিএসসি । এ সময় অন্যান্যর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রাঙামাটি রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল রিদওয়ান আল মাহমুদ, জেলা প্রশাসক মোস্তফা কামাল, পুলিশ সুপার আমেনা বেগম, রাঙামাটি সদর জোন কমান্ডার লেঃকর্নেল সোহেল আহমেদ,পৌর মেয়র সাইফুল ইসলাম ভুট্টো, রাঙামাটি প্রেস ক্লাব সভাপতি সুনীল কান্তি দে প্রমুখ। পতাকা প্রদানের আগে অটল ৫৬ বেঙ্গল রেজিমেন্টের সদস্যদের মনোমুগ্ধকর কুচকাওয়াজ প্রদর্শন অনুষ্ঠিত হয়।

IMG_3275

উল্লেখ্য,২০ ফের্রুয়ারী ২০০৪ সালে ৬৬ পদাতিক ডিভিশনের অধীস্থ এবং খোলাহাটিতে অবস্থিত বীর উত্তম শহীদ মাহবুব সেনানিবাসে নবগঠিত ১৬ পদাতিক ব্রিগেডের অরব্যাট বিএ-৩০০ লেঃকর্নেল মোঃ শফিক শামীম পিএসসি এর নেতৃত্বে  বঙ্গ শার্দুল পরিবারের ৫৬ তম ব্যাটালিয়নের প্রতিষ্ঠা লাভ করে। সৌম্য, শক্তি ও ক্ষিপ্রতার মূলমন্ত্রকে সামনে রেখে নবগঠিত এ ইউনিটের নামকরন করা হয় আটল ছাপান্ন। নব গঠিত ৫৬ ইষ্ট বেংগলে যোগদানকারী সকল পদবীর সৈনিকগণ প্রাথমিকভাবে ৯ বেংগল ল্যান্সারে অবস্থান করে।

পরবর্তীতে ৩ মার্চ ২০০৪ সালে শহীদ মাহবুব সেনানিবাসস্থ ক্যান্টমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজের নবনির্মিত ছাত্রাবাসে অস্থায়ীভাবে ইউনিটের কার্যক্রম শুরু হয়। ২০ জুন ২০০৪ সালে ৬৬ পদাতিক ডিভিশনের জেনারেল অফিসার কমান্ডিং মেজর জেনারেল রেজাকুল হায়দার এনডিসি,পিএসসি আনুষ্ঠানিকভাবে নবগঠিত ৫৬ ই বেংগলের পাতাকা উত্তোলন করেন।

জানা গেছে, একটি ইউনিট যখন প্রশিক্ষন, সামরিক অনুশীলন, সামরিক অভিযান ও প্রশাসনিকভাবে উৎকর্ষতা অর্জন করে তারই স্বীকৃতিস্বরুপ প্রচলিত আনুষ্ঠানিকতার মাধ্যমে তাকে প্রদান করা হয় ঐতিহ্যবাহী রেজিমেন্টাল কালার। রেজিমেন্টাল কালার প্রাপ্তি যে কোন ইউনিটের জন্য একটি বিরল সন্মান এবং একটি অতি পবিত্র আমানত।

২৪ পদাধিক ভিডিশনের চট্টগ্রামের  জিওসি মেজর জেনারেল সাব্বির আহমেদ তার বক্তব্যে রেজিমেন্টাল কালার প্রাপ্তি যে কোন ইউনিটের জন্য একটি বিরল সন্মান এবং একটি অতি পবিত্র আমানত বলে উল্লেখ  করে বলেন, মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে আমাদের পতাকা, আমাদের সূর্যের সন্তান মহান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের  যুগিয়েছে অভিরাম শক্তি, সাহস ও প্রেরনা। যার ফলশ্র“তিতে আজ বিশ্বের মানচিত্রে আমরা একটি মর্যাদাপুর্ন স্বাধীন জাতিসত্বা হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেয়েছি।

h2

তিনি আরও বলেন, অনেক ত্যাগ-তিক্ষিার মাধ্যমে আমরা স্বাধীনতা অর্জন করেছি। এখন সময় এসেছে দেশের সার্বভৌমত্ব অক্ষুন্ন রেখে দেশ গড়ার। তাই কঠোর প্রশিক্ষণ ও অনুশীলনের মাধ্যমে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী দক্ষতা নিহিত রয়েছে। দক্ষতা স্বাক্ষর রাখায় আজ আর্ন্তজাতিক পরিমন্ডলে আমাদের সেনা বাহিনীর সমাদৃত। এ সুনাম দেশে-বিদেশে ধরে রাখতে হবে। এ জন্য প্রয়োজন সময়োপযোগী জ্ঞান অর্জন ও কঠোর প্রশিক্ষণ এবং সত্যিকার অর্থে শারীরিক দক্ষতা। আমার দৃঢ় বিশ্বাস অটল ৫৬ এ প্রচেষ্টা সবসময় অব্যাহত রাখবে। তিনি কঠোর পরিশ্রমের বিনিময়ে একটি সুশৃংখল ও মনোজ্ঞ কুচকাওয়াজ উপহার দেয়ার জন্য অটল ৫৬ কে অভিভন্দন জ্ঞাপন করেন।

–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly