রাঙামাটিতে শিশু বান্ধব স্কুল প্রকল্পের আওতায় স্কুল শিক্ষকদের শাট্ল বোট পরিচালনা প্রশিক্ষণ এবং বোট বিতরণ

স্টাফ রিপোর্টার,হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

s1

ইউনিসেফের সহযোগিতায় মঙ্গলবার শিশু বান্ধব স্কুল প্রকল্পের আওতায় রাঙামাটির ১০টি বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের শাট্ল বোট পরিচালনা প্রশিক্ষণ এবং বোট বিতরণ করা হয়েছে।

রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ সন্মেলন কে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা। বিশেষ অতিথি ছিলেন ইউনিসেফের চীফ ফিল্ড অপারেশনস্ কাটসামাং রাজপাংথাং, চীফ সাপ্লাই প্রকিউরমেন্ট অকিজো সারিয়া, সিনিয়র প্রোগ্রাম এ্যাসিসটেন্ট মনোজ কুমার দেব, চট্টগ্রাম হেড অব জোন মাধুরী ব্যানার্জি, এ্যাডুকেশন স্পেশালিষ্ট সিয়ারা রাভিরা, ইউনিসেফ চট্টগ্রাম জোনের এ্যাডুকেশন অফিসার লায়লা বেগম। স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা একেএম রিয়াজ উদ্দীন আহমেদ।  অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন রাঙামাটি ইউনিসেফের প্ল্যানিং অফিসার উম্মে হালিমা।

অনুষ্ঠানে রাঙামাটি সদর উপজেলা, বিলাইছড়ি উপজেলা এবং বরকল উপজেলার মোট ১০টি বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের শাট্ল বোট পরিচালনা প্রশিক্ষণ, বোট, লাইফ জ্যাকেট ও টায়ার বিতরণ করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিষদ চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা  পার্বত্য এলাকার অনগ্রসর শিশুদের শিক্ষার আলোয় আলোকিত করতে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, দুর্গম এলাকার শিক্ষা থেকে বঞ্চিত ও পিছিয়ে পড়া শিশুদের শিক্ষিত করতে  সরকারি ও দাতা সংস্থার পাশাপাশি বিত্তবান, অভিভাবক ও সমাজের শিক্ষিত ব্যক্তিরা এগিয়ে এলে পাহাড়ের শিশুরা আলোকিত সমাজ গঠনে অগ্রণী ভূমিকা রাখবে।

তিনি আরও বলেন, সরকারের পাশাপাশি দাতা সংস্থা ইউনিসেফ পার্বত্য চট্টগ্রামের দুর্গম এলাকার মহিলা ও শিশুদের জন্য উন্নয়নমূলক কাজ অবশ্যই প্রশংসার দাবীদার। তিনি বলেন, কাপ্তাই লেক সংলগ্ন দুর্গম এলাকার সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের শিক্ষাক্ষেত্রে আরো অংশগ্রহণ ও শিখনের সুযোগ বাড়ানোর জন্য দাতা সংস্থার পাশাপাশি স্কুল ম্যানিজিং কমিটিকে জোরালো ভূমিকা রাখতে হবে।

তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের জন্য প্রদানকৃত বোট শুধুমাত্র শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে আসা যাওয়ার জন্য ব্যবহার করতে হবে, অন্য কোন কাজে নয়। আগামীতে দাতা সংস্থার প্রদানকৃত বোট কিভাবে সঠিক ব্যবহার ও যত্নের সাথে সচল রাখতে হবে এ বিষয়ে এসএমসি কমিটিকে সচেষ্ট থাকতে হবে।

 উল্লেখ্য, গত ২০১২ সালে ইউনিসেফ কর্তৃক রাঙামাটি সদর উপজেলার হেমন্ত, গোলাছড়ি, কালী পাহাড়, জগনাছড়ি, বরকল উপজেলার ধামাইছড়া এবং বিলাইছড়ি উপজেলার কেরণছড়ি বিদ্যালয়ে ৬টি বোট প্রদান করা হয়েছিল। এ পর্যন্ত মোট ১৬টি বোট প্রদান করে।

–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly