রাঙামাটিতে যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় প্রবারণা পূর্নিমা উদযাপিত

স্টাফ রিপোর্টার, হিলবিডি টোয়েন্টিফোর ডটকম

দেশের সুখ-শান্তি ও সম্বৃদ্ধি কামনা করে ১৮ অক্টোবর রাঙামাটিতে যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় বৌদ্ধ ধর্মালম্বীদের  প্রবারণা পূর্নিমা উদযাপিত হয়েছে। প্রবারণা পূর্নিমা উপলক্ষে রাঙামাটির রাজ বন বিহারে গতকাল সকালের দিকে বুদ্ধ পতাকা উত্তোলন, ভিক্ষু সংঘের পিন্ডদান ও প্রাতঃরাশ, বুদ্ধ পূজা এবং ধর্মীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। রাজ বন বিহার মাঠে ধর্মীয় অনুষ্ঠানে স্বধর্ম প্রাণ দায়ক-দায়িকাদের উদ্দেশ্য ধর্মীয় দেশনা দেন রাজ বন বিহারের প্রধান শ্রীমৎ প্রজ্ঞালংকার মহাস্থবির ও জ্ঞান প্রিয় মহাস্থবির। অনুষ্ঠানে অন্যান্যর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা, চাকমা সার্কেল চীফ দেবাশীষ রায়, সাবেক উপমন্ত্রী মনিস্বপন দেওয়ান, রাজবন বিহার পরিচালনা কমিটির সভাপতি গৌতম দেওয়ান, সাধারন সম্পাদক প্রতুল বিকাশ চাকমা, জেলা বিএনপির সভাপতি দীপেন দেওয়ান, মঞ্জুলীকা চাকমাসহ অন্যান্য প্রমুখ। পরিনির্বাণপ্রাপ্ত আর্য্য পুরুষ শ্রীমৎ সাধনানন্দ মহাস্থবির(বনভান্তে) রেকর্ডকৃত ধর্মীয় দেশনা শ্রবনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান সমাপ্তি ঘটে। অনুষ্ঠানে শত শত ধর্মপ্রাণ নর-নারী অংশ নেন। বিকালে হাজার প্রদীপ প্রজ্জ্বলন ও ফানুজ বাতি উড়ানো হয়।

hillbd pic-1

অপরদিকে শহরের কাঠালতলী মৈত্রী বিহারে প্রবারনা অনুষ্ঠিত হয়। মৈত্রী বিহারের অধ্যক্ষ  শ্রীমৎ পূর্নজ্যোতি ভিক্ষুর সভাপতিত্বে ধর্মদেশনা দেন শিলানন্দ ভিক্ষু প্রমুখ।  সেখানেও কয়েক শত ধর্মপ্রাণ নর-নারী পূর্ন্যানুষ্ঠানে শরিক হন।

উল্লেখ্য, বৌদ্ধ ধর্মীয় ভিক্ষু-শ্রমনরা তিন মাস বর্ষাবাসের শেষ দিনটিতে  প্রবারণা পূর্নিমা হিসেবে উদযাপন করা হয়ে থাকে। এর পর থেকে দীর্ঘ একমাস ধরে আয়োজন চলে বৌদ্ধ ধর্মালস্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব কঠিন চীবর দান।
–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/এনএ.

Print Friendly