রাঙামাটিতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে নতুন বই বিতরণ

স্টাফ রিপোর্টার, হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম 

RHDC Picture -02-01-14-04hillbd24.com

রাঙামাটি পার্বত্য জেলায় বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নতুন বছরের বিনামূল্য পাঠ্য বই আজ বৃহস্পতিবার(২জানুয়ারী) আনুষ্ঠানিকভাবে বিতরণ করা হয়েছে। বই বিতরনের উদ্ধোধন করেন রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা।

রাঙামাটির কাঠালতলী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে পাঠ্য বই বিতরণ উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে শিক্ষার্থীদের মাঝে বই বিতরণ করেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা। এ সময় জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা একেএম রিয়াজ উদ্দীন আহমেদ, কাঠালতলী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ বদিউল আলমসহ শিক্ষক-শিক্ষিকা ও অভিভাবকরা উপস্থিত ছিলেন। রাঙামাটিতে এ বছর ৯শ ১০টি বিদ্যালয়ে ১লক্ষ ২হাজার ২শ ২৪জন শিক্ষার্থীদের মাঝে ৪লক্ষ ৭৭ হাজার বই বিতরণ করা হবে বলে জানা গেছে।

এদিকে নতুন পাতার ঘ্রাণ, নতুন নতুন গল্প-কবিতা পড়া, বইয়ে মলাট লাগানো ও মলাটের ওপর নকশা করা ইত্যাদি কাজকর্মের মাধ্যমে নতুন বছরের পড়া-লেখাকে বরণ করে নিতে ছোট ছোট কোমলমতি শিক্ষার্থীরা উৎসাহ নিয়ে রাঙামাটির কাঠালতলী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উপস্থিত হয়েছিল। শিক্ষার্থীরা নতুন পাঠ্য বই পাওয়ার জন্য সকাল থেকে আপক্ষা করছিল। শেষ পর্ষন্ত অপেক্ষার পালা শেষ করে পরিষদ চেয়ারম্যান আনুষ্ঠানিকভাবে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেন। এসময় শিক্ষার্থীরা নতুন বছরের নতুন বই পেয়ে খুশীতে আত্নহারা।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে, উন্নত জাতি হিসেবে বিশ্ব দরবারের প্রথম সারিতে স্থান পেতে হলে সু-শিায় শিতি হতে হবে আহ্বান জানিয়ে পরিষদ চেয়ারম্যান বলেন, শিক্ষার গুনগতমান উন্নয়ন করতে হলে শিক্ষক, অভিভাবকসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিকভাবে কাজ করতে পারলে শিক্ষার গুনগত মান উন্নয়ন হবে। শিক্ষা ছাড়া কোন জাতি উন্নয়ন করতে পারে না। তাই শিার মান উন্নয়ন করতে সমাজের সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।

তিনি আরও বলেন বর্তমান সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নের লক্ষে আধুনিক বিজ্ঞান সম্মত, বিশ্বদরবারের গ্রহণযোগ্য ও বাস্তবমুখী একটি জাতীয় শিক্ষানীতি প্রনয়ন করেছে। এ শিক্ষা নীতি বাস্তবায়ন হলে একটি শিশু বেড়ে ওঠার সাথে সাথে তার মেধার বিকাশ ঘটবে এবং পরিপূর্ন মানুষ হিসাবে গড়ে উঠবে। এ শিক্ষা ব্যবস্থায় ধর্মীয় মূল্যবোধ সৃষ্টি ,বিজ্ঞান শিক্ষাসহ যাবতীয় শিক্ষার সুযোগ রয়েছে। এছাড়াও আমাদের নতুন প্রজন্ম এ শিক্ষানীতি আলোকে শিক্ষা গ্রহণ করে নিজেকে যোগ্য নাগরীক হিসেবে গড়ে তুলতে পারবে।
–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly