বিএনপিসহ ১৮দলীয় জোটের ডাকা ৬০ঘন্টার হরতালে পর্যটক শুন্য হয়ে পড়েছে দার্জিলিং খ্যাত পার্বত্য বান্দরবানে

বান্দরবান প্রতিনিধি, হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

Megla Bridge

বিএনপিসহ ১৮ দলীয় ঐক্যজোটের টানা ৬০ ঘন্টা হরতালের কারণে বাংলাদেশের পর্যটনের দার্জিলিং বলে খ্যাত পার্বত্য বান্দরবানে এখন পর্যটক শুন্য। ফলে পর্যটন সাথে সংশ্লিষ্টরা পর্যটক না থাকায় আলস সময় কাটানোসহ লোকসানি গুনছেন।

জানা গেছে বর্তমান পর্যটন মৌসুমে প্রতি বছর বাংলাদেশের দার্জিলিং খ্যাত বান্দরবানে প্রচুর দেশী-বিদেশী পর্যটকের সমাগম ঘটে থাকে। কিন্তু এবারে দেশের রাজনৈতিক অস্থিতিশীল পরিস্থিতি এবং টানা ৬০ ঘন্টার হরতাল আহ্বানের কারণে এখন বান্দরবানে পর্যটক শূন্য। পর্যটন ব্যবসায় জড়িত হোটেল-মোটেল, রেস্টহাউস, রির্সোস সেন্টার ও রেস্টুরেন্ট মালিকরা আলস সময় কাটিয়ে দিচ্ছেন। প্রতিদিন গুনতে হচ্ছে কয়েক হাজার টাকার লোকসান। এভাবে চলতে থাকলে পর্যটন ব্যবসায়ীদের পথে বসা ছাড়া কোন উপায় নেই।

প্রাকৃতিক  সৌন্দর্য্যর  লীলা ভূমি এই পার্বত্য বান্দরবানে পর্যটন স্পট হিসেবে রয়েছে নীলাচল, মেঘলা, চিম্বুক, গোল্ডেন টেম্পলসহ ইত্যাদি মনকড়া প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য। এছাড়া রয়েছে অনেক ছোট-বড়,উঁচু-নিচু সবুজ পাহাড়। যা সহজেই পর্যটকদের আকৃষ্ট করে।

আবাসিক হোটেল গ্রীণ ল্যান্ড এর ব্যবস্থাপক মোঃ কাওসার সোহাগ জানান, এক সপ্তাহ আগেও বান্দরবানে পর্যটকের ভীড় ছিল। হোটেল-মোটেলগুলোতে কক্ষ খালি ছিল না। কিন্তু ২৭অক্টোবর থেকে ১৮দলীয় জোটের ডাকা টানা ৬০ঘন্টার হরতালে অনেক পর্যটক বুকিং বাতিল করে দিয়েছেন। আর যারা বান্দরবানে ছিলেন তারাও আতংকে ও অনিশ্চয়তার মধ্যে হরতাল শুরুর আগেই বান্দরবান ত্যাগ করেছেন। তিনি বান্দরবানসহ বাংলাদেশে পর্যটন শিল্পকে এগিয়ে নিতে এ ধরনে ধংসাত্মক হরতালের মত কোন রাজনৈতিক কর্মসূচি যেন না দেয়ার আহ্বান জানান।

বান্দরবান হোটেল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোঃ সিরাজুল ইসলাম জানান, হরতালের কারনেই ব্যাপক ধস নেমেছে পর্যটন শিল্পে। লোকসান গুণতে হচ্ছে হোটেল মালিকদের। এমনকি কর্মচারীর বেতনসহ আনুষাঙ্গিক খরচ চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

বান্দরবান জেলা প্রশাসক কে.এম.তারিকুল ইসলাম বলেন, রাজনৈতিক অস্থিতিলতা ও হরতালের মত রাজনৈতিক কর্মসূচির কারনেই বান্দরবানে পর্যটন শিল্পে ভাটা পড়েছে। পর্যটন শিল্পের জন্য বান্দরবান একটি সম্ভাবনাময় ও সম্প্রীতির জায়গা। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পর্যটকদের সার্বিক সুযোগ-সুবিধা বাড়াতে ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পর্যটন স্পটগুলোতে অনেক পরিবর্তন আনা হয়েছে। এই শিল্পকে এগিয়ে নিতে হলে রাজনৈতিক স্থিতিশিলতা থাকা প্রয়োজন বলে তিনি মনে করেন।
–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly