দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন


বান্দরবানে বীর বাহাদুর ও প্রসন্ন কান্তির মধ্যে হবে ভোটের লড়াই

বান্দরবান প্রতিনিধি, হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

10th MP Electionhillbd24.com

আসন্ন দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বান্দরবান ৩০০আসনে আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থী বীর বাহাদুর উশৈসিং(নৌকা), আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী প্রসন্ন কান্তি তংচংগ্যার (টেবিল ঘড়ি) মধ্য হবে ভোটের লড়াই।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এবার বান্দরবানের ৩০০নং আসনের চার জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। এরা হলেন আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থী বীর বাহাদুর উশৈসিং(নৌকা), আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী প্রসন্ন কান্তি তংচংগ্যার (টেবিল ঘড়ি) স্বতন্ত্র প্রার্থী সাংবাদিক কামরুজ্জামান(টিয়া পাখি)ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ছোটন কান্তি তংচংগ্যা(হাতি প্রতীক)।

এদিকে চার প্রার্থীর মধ্যে মূলতঃ তীব্র ভোট যুদ্ধ চলছে আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী ও আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বীর বাহাদুর উশৈসিং এর সাথে বিদ্রোহী প্রার্থী জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি প্রসন্ন কান্তি তংচংগ্যার মধ্যে। পর পর চার বার নির্বাচিত আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থীকে হারিয়ে দেয়ার চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছেন এই বিদ্রোহী প্রার্থী। তাঁর মাঠ পর্যায়ে তৃণমূল নেতা-কর্মী আর সাধারণ মানুষের ব্যাপক সমর্থন রয়েছে বলে মনে করছেন তিনি।

তাছাড়াও প্রধান বিরোধী দল বিএনপিসহ ১৮দলীয় জোট নির্বাচনে অংশ গ্রহণ না করায় নৌকা প্রতীককে ঠেকানোর কৌশল হিসেবে ১৮দলের নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা আওয়ালীগের এই বিদ্রোহী প্রার্থীকে সমর্থন জানিয়েছেন। পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন না করা ও সংশোধিত পঞ্চদশ সংবিধানে আদিবাসী স্বীকৃতি না দেয়ায় পাহাড়ে আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি(জেএসএস) বীর বাহাদুরসহ তিন পার্বত্য জেলা সাংসদের প্রতি ক্ষুব্ধ। তাই আওয়ালীগের বিদ্রোহী প্রার্থী প্রসন্ন কান্তি তংচংগ্যা বীর বাহাদুরের এই আসনটিকে কেড়ে নিতে অনেকটা সহজ হবে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

মাঠ পর্যায়ে গত পাঁচ বছরের আওয়ালীগের অবহেলিত বড় একটি অংশের নেতা-কর্মীরা অনেকটা নীরবে কাজ করে যাচ্ছেন বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে। লামায় শ্রমিক লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক মোঃ আমজাদ জানান,বীর বাহাদুরের গত পাঁচ বছরের ক্ষমতা অপব্যবহার,ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচারণ আর স্বজন প্রীতির কারনে আমরা এই আসনে নতুন মুখ দেখতে চাই।

এদিকে বীর বাহাদুর এমপি গত পাঁচ বছরের তাঁর উন্নয়ন কর্মকান্ডের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে নৌকা প্রতীকে আবারও ভোট চেয়ে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে চষে বেড়াচ্ছেন। বিরাম হীন প্রচার-প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পাড় করে চলেছেন তিনি।

জেলা নির্বাচন কর্তকর্তা আবদুল লতিফ শেখ জানান,বান্দরবান ৩০০আসনে দুইটি পৌরসভা,সাতটি উপজেলা ও একত্রিশটি ইউনিয়নে ২ লাখ ১৬ হাজার ৮০৭জন ভোটার রয়েছে। ভোট গ্রহণ কেন্দ্র রয়েছে ১শ’৬৩টি। জেলার দূর্গম ১৩টি ভোট কেন্দ্রে ভোট গ্রহণের সময় বিমান বাহিনীর হেলিকপ্টার ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

জেলা রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক কে.এম.তারিকুল ইসলাম জানান,আগামী ৫জানুয়ারী ভোট গ্রহণের জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। এপর্যন্ত নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘনের কোন রকম অভিযোগ পাওয়া যায়নি বলে জানান তিনি।
–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly