বান্দরবানে জমি নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে দুগ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে আহত ৬:আটক ৪

বান্দরবান প্রতিনিধি, হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

Bandarban pic

বান্দরবান জেলা সদরের বনরুপা পাড়ায় জমি নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে ৬জন আহত হয়েছে। এঘটনায় পুলিশ জেলা শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ ৪জনকে আটক করেছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় বনরূপা পাড়ার বাইশপরিবার এলাকায় পাহাড়ে জেলা শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলামের লোকজন জঙ্গল পরিস্কার করছিল। এসময় পাশ্ববর্তী আব্দুল জাব্বারসহ তার আত্মীয়-স্বজনরা তাদের বাধা দিলে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়।

সংঘর্ষ মারাত্মক আকার ধারণ করলে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এঘটনায় উভয় পক্ষের ৫জন আহত হয়। এরা হলেন শ্রমিকলীগের জেলা সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম (৪০), আব্দুর জব্বার (৩৫), আব্দুল মান্নান (৪২), আজিজুর রহমান (২৫) ও আজিজ মিস্ত্রী (৪৫)। পরে স্থানীয়রা আহত অবস্থায় আব্দুল মান্নান ও আজিজুর রহমানকে উদ্ধার করে বান্দরবান সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

 ঘটনাস্থল থেকে আব্দুল জব্বারকে পুলিশ আটক করেছে। পরে সদর থানার এলাকা থেকে পুলিশ শ্রমিকলীগের জেলা সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, রোকন উদ্দিন ও মোঃ হোসেনকে আটক করা হয়।

এদিকে সংঘর্ষের ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুপুর ১টার দিকে জেলা ছাত্রদলের সহসভাপতি মুসলিম উদ্দিন চৌধুরীর পর হামলা চালিয়েছে জেলা স্বেচ্ছা সেবকলীগের যুগ্ন সম্পাদক নাজিম উদ্দিনের নেতৃত্বে প্রায় ২০/২৫ জন নেতাকর্মী।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ছাত্রদল নেতা মুসলিম উদ্দিনকে বাসা থেকে ডেকে এনে বান্দরবান জেলা ও দায়রা জজ আদালত ভবনের প্রধান গেইটের সামনে বিভিন্ন অস্ত্র শস্ত্র দিয়ে স্বেচ্ছা সেবকলীগ নেতা নাজিম উদ্দিনের নেতৃত্বে হামলা চালিয়ে তাকে গুরুতর আহত করে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে বান্দরবান সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

এ ব্যাপারে জেলা স্বেচ্ছা সেবকলীগের যুগ্ন সম্পাদক নাজিম উদ্দিন জানান, তার নেতৃত্বে মুসলিম উদ্দীনের উপর কোন হামলা চালানো হয়নি। হয়তোবা ভূল টার্গেটের কারণে তিনি হামলার শিকার হয়েছেন।

 সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইমতিয়াজ আহমেদ জানান, সংর্ঘষের ঘটনায় উভয় পক্ষের লোকজনকে আটক করা হয়েছে। বেশ কয়েকজন আহত হওয়ার খবরও শুনেছি। এ ব্যাপারে এখনো কেউ থানায় অভিযোগ দায়ের করেননি।

–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর

Print Friendly