বান্দরবানে অবৈধ ইট ভাটার ছবি তুলতে গিয়ে শ্রমিকদের হাতে লাঞ্ছিত হলেন সাংবাদিক বুদ্ধ জ্যোতি চাকমা !

বান্দরবান প্রতিনিধি, হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

Buddojoti_DMEABSবান্দরবানের গুংগুরু খিয়াং পাড়া এলাকায় এবিসি নামের একটি অবৈধ ইট ভাটায় বনের কাঠ পোড়ানোর ছবি তুলতে গেলে দৈনিক প্রথম আলোর বান্দরবান প্রতিনিধি ও সিনিয়র সাংবাদিক বুদ্ধ জ্যোতি চাকমাকে ইট ভাটার শ্রমিকরা লাঞ্ছিত করেছে বলে জানা গেছে। আজ রোববার(৮ ডিসেম্বর) বিকালে এই ঘটনাটি ঘটেছে।  এ ঘটনার প্রতিবাদে স্থানীয় সাংবাদিকরা আজ সোমবার বান্দরবান প্রেস ক্লাব চত্বরে মানববন্ধনের কর্মসূচীর ঘোষনা দিয়েছেন।

জানা গেছে, আজ রোববার(৮ ডিসেম্বর) বিকালে জেলা কৃষক দলের সভাপতি মোহাম্মদ ইসলাম কোম্পানির মালিকানাধীন সদর উপজেলার গুংগুরুস্থ খিয়াংপাড়া এলাকায় অবস্থিত এ.বি.সি নামে ইটভাটায় জ্বালানি কাঠ ও কৃষি জমির মাটির ছবি তুলতে যান সাংবাদিক বুদ্ধ জ্যোতি চাকমা। এসময় ইট ভাটার শ্রমিক সর্দার পরিচয়দানকারি মৌলভি শহর আলী ওরফে তাজুল বুদ্ধজ্যোতি চাকমাকে অকথ্যভাষায় গালাগালি ও হামলা চালানোর চেষ্টা চালায়। পরে ইট ভাটার মালিক ইসলাম কোম্পানীর উপস্থিতিতে তাঁকে লাঞ্ছিত করে শ্রমিকরা।

স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেছেন, গুংগুরু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে বিএনপি নেতার এই ইট ভাটা নির্মানের কারনে ইট ভাটা থেকে নির্গত বিষক্ত কালো ধোঁয়ার কারণে এবং কৃষি জমি কেটে মাটি বোঝাই করে আনার সময় ট্রাকের বিকট আওয়াজ এবং ধুলাবালিতে বিদ্যালয়ের প্রাঙ্গণ আচ্ছন্ন হয়ে পড়ে। এতে বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা ঠিকমত ক্লাশ করতে পারছে না। বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা বিগত বছরগুলোতে প্রভাবশালী এই বিএনপি নেতার এই অবৈধ ইট ভাটাটি বন্ধ করার দাবীতে একাধিকবার জেলা শহরে মানববন্ধন করলেও প্রশাসন কোন কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহন করেনি বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।

স্থানীয় গুংগুরুর খিয়াং আদিবাসিরা অভিযোগ করে বলেছেন,এবিসি নামের ইট ভাটার মালিক মোহাম্মদ ইসলামের কাছে তারা আট বছর ধরে জিম্মি হয়ে রয়েছেন। স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করার কারণে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ও প্রতিবাদ সভা-সমাবেশ করলেও কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয় না। বরং স্থানীয়দের হুমকি-ধামক্কি দেয়া হয়।

বান্দরবান খিয়াং ছাত্র পরিষদের সভাপতি হামং খিয়াং অভিযোগ করেন, ইট ভাটাটি বন্ধের জন্য একাধিকবার মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করার পরও প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নেয়নি স্থানীয় প্রশাসন।

প্রথম আলোর বান্দরবান প্রতিনিধি বুদ্ধ জ্যোতি চাকমার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এই ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে আশা প্রকাশ করেন।

 বান্দরবান জেলা প্রশাসক কেএম তারিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, বান্দরবান জেলায় একটিও বৈধ ইট ভাটা নেই । ইট ভাটাগুলোর বিরুদ্ধে অবিলম্বে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly