পিসিপি’র চট্টগ্রাম মহানগর শাখার ১০ম কাউন্সিল ও সম্মেলন সম্পন্ন

ডেস্ক রিপোর্ট,হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

IMG_20141205_141511

বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ(পিসিপি) চট্টগ্রাম মহানগর শাখার ১০ম কাউন্সিল ও সম্মেলন শুক্রবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। সমন্মেলনের মাধ্যমে বিপুল চাকমাকে সভাপতি, শান্ত চাক-কে সাধারন সম্পাদক এবং রমেশ চাকমাকে সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত করে ৩৩ সদস্য পিসিপির চট্টগ্রাম মহানগর শাখার নতুন কমিটি গঠন করা হয়।

পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ চট্টগ্রাম মহানগর শাখার দপ্তর সম্পাদক শরজিৎ চাকমার স্বাক্ষরিত এক প্রেস বার্তায় বলা হয়, “পার্বত্য চট্টগ্রামের শাসক শ্রেনীর সকল চক্রান্তের জাল ছিন্ন করে ভূমি ও অস্তিত্ব রক্ষার সংগ্রামে ঝাপিয়ে পড়ুন”এই শ্লোগানকে সামনে রেখে নগরীর চেরাগী পাহাড়স্থ ইসলামাবাদী মেমোরিয়াল হলে আয়োজিত সন্মেলনে সভাপতিত্ব করেন পিসিপি মহানগর শাখার সভাপতি সুকৃতি চাকমা। বক্তব্য রাখেন পিসিপির সাবেক কেন্দ্রীয় সাধারন সম্পাদক ও ইউপিডিএফ এর অন্যতম সংগঠক অলকেশ চাকমা, ইউপিডিএফ-এর বান্দরবান জেলা সমন্বয়ক ছোটন কান্তি তঞ্চঙ্গ্যা, চট্টগ্রাম অঞ্চলের সমন্বয়করী বকুল চাকমা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের কেন্দ্রীয় নেতা এসিংমং মারমা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের চট্টগ্রাম মহানগর কমিটির সভাপতি জিকু মার্মা, পিসিপির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক রিটন চাকমা, হিল উইমেন্স ফেডারেশন খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সভাপতি মিশুক চাকমা এবং জাতীয় ছাত্র দল (ঘউঋ) চ.বি শাখার সহ সভাপতি ওমর ফারুক ও মনি স্বপন চাকমা প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বিপুল চাকমা।

সম্মেলনে সর্বসম্মতিক্রমে বিপুল চাকমাকে সভাপতি, শান্ত চাক-কে সাধারন সম্পাদক এবং রমেশ চাকমাকে সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত করে ৩৩ সদস্য বিশিষ্ট বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ(পিসিপি) চট্টগ্রাম মহানগর শাখার নতুন কমিটি গঠন করা হয়। পিসিপি’র কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক রিটন চাকমা নতুন কমিটির সদস্যদের শপথ বাক্য পাঠ করান। সন্মেলন শেষে নতুন কমিটির নেতৃত্বে একটি র‌্যালি নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

সম্মেলনে বক্তারা বলেন, খাগড়াছড়ির গুইমারায় নাক্রাইবাঁধ প্রকল্প, রাঙামাটিতে বিজ্ঞান  ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং মেডিকেল কলেজ স্থাপন, দীঘিনালা ও বান্দরবানে বিজিবি ক্যাম্প স্থাপনের নামে পাহাড়িদের ভূমিহীন করার ষড়যন্ত্র চলছে। এসবের বিরুদ্ধে ছাত্র সমাজকে রুখে দাঁড়াতে হবে।

বক্তারা আরো বলেন, সরকার পার্বত্য চট্টগ্রামের মূল সমস্যা আড়াল করে নিজের স্বার্থ হাসিল করতে পার্বত্য জেলা পরিষদ বিল সংসদে পাশ করেছে। জবাবদিহিতা বিহীন এই জেলা পরিষদ বর্তমানে সরকারী দলের নেতা-কর্মীদের পুনর্বাসন কেন্দ্র ও দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়েছে। বক্তারা সম্প্রতি সংসদে পাশ হওয়া পার্বত্য জেলা পরিষদ বিল বাতিল করে নির্বাচন দিয়ে জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার দাবি জানান।

–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly