পার্বত্য এলাকায় টেকসই উন্নয়নে সৃজনশীল নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টি সরকারের অন্যতম অগ্রাধিকার —-শিল্পমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার,হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

4

কাংখিত অর্থনৈতিক অগ্রগতির জন্য দেশের আদিবাসী জনগোষ্ঠীকে উন্নয়নের মূলধারায় সম্পৃক্ত করা জরুরী। তাদেরকে বাদ দিয়ে কোনভাবেই অর্থনৈতিক উন্নয়নের লক্ষ্য অর্জন সম্ভব নয় বলে মন্তব্য করেছেন শিল্পমন্ত্রী আমীর হোসেন আমু এমপি।

তিনি বলেন, আওয়ামীলীগ সরকার শিল্পবান্ধব এবং  সুষম উন্নয়নে বিশ্বাসী। পার্বত্য এলাকায় টেকসই উন্নয়নে সৃজনশীল নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টি সরকারের অন্যতম অগ্রাধিকার। এ লক্ষ্য অর্জনে সরকারের পক্ষ থেকে যতটুকু সম্ভব সবকিছু করা হবে। তিনি পার্বত্যাঞ্চলের এসএমই উদ্যোক্তাদের শিল্প ঋণ ও প্রশিক্ষন সেবা জোরদারের বিশেষ উদ্যোগ নিতে এসএমই ফাউন্ডেশকে আহ্বান জানান।

 শুক্রবার রাঙামাটিতে পাচঁ দিন ব্যাপী ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প(এসএমই) পন্য মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিল্পমন্ত্রী এ কথা বলেন।

3

 শহরের রাঙামাটি জিমনেসিয়ামে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন এসএমই ফাউন্ডেশনের চেয়ারপার্সন কেএম হাবিব  উল্লাহের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার, তিন পার্বত্য জেলার সংরক্ষিত আসনের ফিরোজা বেগম চিনু, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা, রাঙামাটি চেম্বার অফ কমার্সের সভাপতি মাহবুবুর রহমান ও ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার আবুল কালাম আজাদ। বক্তব্যে দেন বেইন টেক্সটাইলের সত্বাধিকারী মঞ্জুলীকা চাকমা।

 অনুষ্ঠানে শিল্পমন্ত্রী ফিতা কেটে ও বেলুন উড়িয়ে ৫দিনের এসএসই মেলার উদ্বোধন করেন। পরে তিনি মেলার স্টল ঘুরে দেখেন। মেলায় শতাধিক দেশীয় ও স্থাণীয় আদিবাসীদের তৈরী পণ্যর স্টল রয়েছে। এতে আদিবাসী নারী শিল্প উদ্যোক্তারা ছাড়াও এসএমই থেকে ঋণ গ্রহীতারা মেলায় অংশ নেন।

শিল্পমন্ত্রী আরও বলেন, গত চার বছরে এমএমই খাতে ১৮ লাখ ৩৫ হাজার উদ্যোক্তাকে ২ লাখ ৬২ হাজার ৩৪০ কোটি টাকা ঋণ দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে নারী উদ্যোক্তা ৯০ হাজার। ইতোমধ্যে জাতীয় অর্থনীতিতে শিল্পখাতের অবদান প্রায় ৩২ শতাংশৈ উন্নীত হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তাদের জন্য ঋণ প্রাপ্তি সহজ করতে ফাউন্ডেশন ক্রেডিট হোল সেলিং কর্মসূচি গ্রহন করা হয়েছে। এর আওতায় সিঙ্গেল ডিজিট সুদে শিল্প উদ্যোক্তাদের জামানতবিহীন ঋণ দেয়া হচ্ছে। এ খাতে এ পর্ষন্ত ৩৯ কোটি ৭৫ লাখ টাকা ঋণ অনুমোদন করা হয়েছে।

2

শিল্পমন্ত্রী আরও বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে মধ্য আয়ের এবং ২০১৪১ সাল নাগাদ উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিধি নির্মান বর্তমান সরকারের রাজনৈতিক অঙ্গীকার। এ অঙ্গিকার বাস্তবায়নের বঙ্গবন্ধু শিল্পোয়ন চিন্তার আদলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশব্যাপী শ্রমঘন ক্ষদ্র ও মাঝারি লিল্পখাত বিকাশের প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে আসছেন। বর্তমান সরকারের ঘোষিত জাতীয় শিল্পনীতি ২০১০ এ এসএমই খাতকে অগ্রাধিকার শিল্পখাত হিসেবে চিহিৃত করেছে। ২০১৫ সালে যে কোন নতুন জাতীয় শিল্পনীতি ঘোষনা করা হবে। তাতেও এ শিল্পখাত অগ্রাধিকার খাতে আর্ন্তভুক্ত থাকবে। এ খাতের উন্নয়নে বর্তমান সরকারের পক্ষে সব ধরনের নীতি সহায়তা দেয়া হবে।

মন্ত্রী বলেন, এসএমই ফাউন্ডেশন পার্বত্য চট্টগ্রামের ২৫ জন নারী উদ্যোক্তাকে প্রশিক্ষন দিয়েছে। ঐতিহ্যগত স্বকীয়তা বজায় রেখে পণ্যের যগোপযোগি ডিজাইন, কালার কম্বিনেশন এবং বয়ন বিষয়ে এ প্রশিক্ষন দেযা হয়েছে। ফলেএ উদ্যোক্তাদের পণ্যের গুনগতমান বেড়েছে। দৃঢ় বিশ্বাস পার্বত্য এলাকায় আরও নতুন উদ্যোক্তা তৈরী হবে।

মন্ত্রী পার্বত্যাঞ্চলের অপার সম্ভাবনা কাজে লাগাতে আলোকিত উদ্যোক্তা সৃষ্টি জোরদারের আহ্বান জানিয়ে বলেন, আদিবাসী জনগোষ্ঠীর ঐতিহ্যগত শিল্প দক্ষতা কাজে লাগিয়ে জাতীয় অর্থনৈতিক অগ্রগতির ধারাকে বেগবান করবে। এ অভিযাত্রায় লিল্পমন্ত্রনালয় সব সময় পাশে থাকবে।

1

সাবেক প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে উন্নয়নসহ সরকারের গৃহীত উদ্যোগ বিভিন্ন কারণে বাধাগ্রস্থ করা হচ্ছে। পার্বত্যাঞ্চলের অবৈধ অস্ত্রের কারণে এ অঞ্চলের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা থেকে এ অঞ্চলের মানুষ তাদের মেধা বিকাশের প্রতিফলন ঘটাতে পারছে না। তিনি অবিলম্বে পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবি জানান।

–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly