পার্বত্যাঞ্চলে যারা হত্যার রাজনীতি,অপহরণ,চাঁদাবাজী করছে তাদের নিজেদের ক্ষতির পাশাপাশি মানুষের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হচ্ছে– দীপংকর

বিশেষ প্রতিনিধি, হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

Diponkor pic . 12 . 10 . 14

জাতীয় শ্রমিক লীগের ৪৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে রোববার রাঙামাটিতে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার অভিযোগ করে বলেছেন, পার্বত্য এলাকায় যারা এখনো নিজ নিজ কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠায় মানুষ হত্যার রাজনীতি, গুম, অপহরণ, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজী চালিয়ে যাচ্ছে এতে তাদের নিজেদের ক্ষতির পাশাপাশি সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা চরমভাবে বিঘ্নিত হচ্ছে। আমরা এ অঞ্চলের সকল রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মি ও মহলকে দ্বন্ধ সংঘাত, হানাহানি বন্ধ করে আলোচনার টেবিলে সমঝোতার আহবান জানাই। তিনি সবাইকে আসুন সমৃদ্ধ বাংলাদেশ ও সমৃদ্ধ পার্বত্য চট্টগ্রাম বিনির্মাণে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান।

জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভার সভাপতিত্ব করেন জাতীয় শ্রমিকলীগ জেলা শাখার সভাপতি বিদ্যুৎ জ্যোতি চাকমা। বিশেষ অতিথি বক্তব্য রাখেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের সংরক্ষিত মহিলা সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু, রাঙামাটি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা, রাঙামাটি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী মোঃ মুছা মাতব্বর, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা রুহুল আমিন, মমতাজুল হক, সাখাওয়াৎ হোসেন রুবেল, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনসুর আলী, জেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান, জেলা যুবলীগের সহসভাপতি শহিদুল আলম স্বপন, মৎস্যজীবি লীগের উদয়ন বড়–য়া প্রমুখ।

দীপংকর তালুকদার তার বক্তব্যে আরও বলেন, সাধারণ মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য সকল প্রকার দ্বন্ধ সংঘাত পরিহার করতে হবে। সকল সমস্যার সমাধান আলোচনার টেবিলে সমঝোতার মাধ্যমে করা হলে কেউ বৈষম্যের শিকার হবে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার সকলের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠায় কাজ করছে।

তিনি বলেন, দাবী আদায়ের নামে রাষ্ট্রীয় সম্পদ, কল কারখানা ক্ষতিগ্রস্ত হলে এতে শুধু শিল্প মালিকের ক্ষতি হয় না। উৎপাদন ব্যাহত হয়ে এতে শ্রমিকেরও ক্ষতি হয়। তাই মালিক শ্রমিকের মধ্যে একে অপরের প্রতি সহযোগীতার মনোভাব থাকতে হবে।
–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly