মাতৃভাষার মাধ্যমে প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা চালুসহ পাঁচ দফা দাবিতে নানিয়ারচরে পিসিপির বিক্ষোভ-সমাবেশ

স্টাফ রিপোর্টার,হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

n1

অবিলম্বে মাতৃভাষার মাধ্যমে প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা চালুসহ শিক্ষাসংক্রান্ত পাঁচ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে রোববার বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ(পিসিপি) রাঙামাটির নানিয়ারচরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সমাবেশ থেকে বক্তারা সকল জাতিসত্তার নিজ নিজ মাতৃভাষায় প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা চালুসহ শিক্ষা সংক্রান্ত  পাঁচ দফা বাস্তবায়নের জন্য সরকারের কাছে জোর দাবি জানান

নানিয়ারচর উপজেলা মাঠে অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন পিসিপি নেতা অনিল চাকমার সভাপতিত্বে দেন ২নং নানিয়ারচর ইউপি চেয়ারম্যান বিনয় কৃঞ্চ খীসা, ১নং সাবেক্ষং ইউপি চেয়ারম্যান সুশীল জীবন চাকমা, পিসিপির কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি বাবলু চাকমা, হিল উইমেন্স ফেডারেশন জেলা কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক রীণা চাকমা, পিসিপির জেলা শাখার সহ-সভাপতি, কুনেন্টু চাকমা, পিসিপির থানা শাখার সহসভাপতি রিপন আলো, সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কুমোদ বিকাশ চাকমা প্রমুখ। সমাবেশে উপজেলা সদরের বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সমাবেশে অংশ নেয়। সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ-মিছিল নানিয়ারচর বাজার চারদিকে প্রদক্ষিণ করে আবারও উপজেলা মাঠে গিয়ে শেষ হয়।

n2

সমাবেশে বক্তারা বলেন, যে জাতি মাতৃভাষার জন্য ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্র“য়ারীতে বুকের তাজা রক্ত বিলিয়ে দিয়েছে তারাই আজ পাহাড়ের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র জাতিসত্তাকে স্ব-স্ব মাতৃভাষায় শিক্ষা লাভের অধিকার থেকে বঞ্চিত করছে। পার্বত্য চট্টগ্রামে সংস্কৃতির আগ্রাসন, ভুমি আগ্রাসন অব্যাহত রয়েছে। আমরা স্বাধীন দেশে পরাধীনতার শৃঙ্খলে আবদ্ধ হয়ে প্রতিনিয়ত নির্যাতন বঞ্চনার শিকার হচ্ছি। বর্তমান মহাজোট সরকার স্বৈরতন্ত্রের সরকারে পরিণত হয়েছে। সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত পাহাড়িদের ক্ষুুদ্র-নৃগোষ্ঠী ও বাঙালি বানিয়েছে। ষড়যন্ত্র না করে পার্বত্য চট্টগ্রামের চলমান সমস্যা ও সংকট নিরসনে যথাযথ ও কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান বক্তারা। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত শিক্ষার মানোন্নয়ন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে সুন্দর পরিবেশ নিশ্চিত করার পর রাঙামাটিতে মেডিকেল কলেজ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন আহবান জানানো হয়। এই সময়ে যদি বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজ স্থাপন করা হয় তাহলে তা পার্বত্যবাসীর অভিশাপ হয়ে দাড়াবে তাই প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজ স্থাপন করা হলে কঠোর কর্মসুচী দেয়া হবে বলে হুশিয়ারি দেন নেতৃবৃন্দ।

–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly