দিনাজপুরে সান্তাল পল্লীতে হামলা, বাড়িতে অগ্নিসংযোগ, লুটপাট, ভাংচুরের নিন্দা পার্বত্য চট্টগ্রামের ৮ সংগঠনের

ডেস্ক রিপোর্ট,হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

দিনাজপুরের পার্বতীপুরে সান্তাল গ্রামে হামলা চালিয়ে বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেয়া, লুটপাট ও ভাংচুরের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রামে আট গণসংগঠন।

শনিবার আট গণসংগঠনের কনভেনিং কমিটি সদস্য সচিব অংগ্য মারমার স্বাক্ষরিত একপ্রেস বার্তায় বলা হয়, শনিবার সকালের দিকে দিনাজপুরের মোস্তাফাপুর ইউনিয়নের হাবিবপুর গ্রামের ১০টি সান্তাল বাড়ি দুর্বৃত্তরা অগ্নিসংযোগ করে জ্বালিয়ে ছাই করে দেয়। এছাড়া দুর্বত্তরা পুরো গ্রামের বাড়িঘর ভাংচুর চালিয়ে তছনছ করে দেয় এবং গরু-ছাগলসহ তাদের সকল সহায় সম্পত্তিও লুট করে নিয়ে যায়।

দুর্বল প্রান্তিক জনগোষ্ঠী সান্তালদের ন্যায়সঙ্গত প্রতিরোধকে ভিন্নভাবে চিত্রিত করে তাকে সাম্প্রদায়িক সংঘর্ষ আখ্যা দিয়ে দুর্বৃত্তরা মূল ঘটনাকে আড়াল করতে চাইছে প্রেস বার্তায় অভিযোগ করা হয়, জমি বিরোধকে কেন্দ্র করে পার্বতীপুরে একটি সান্তাল গ্রামে অগ্নিসংযোগ, ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনাকে উন্মত্ত ক্ষমতা প্রদর্শন করে। ক্ষমতার সাথে যুক্ত না থাকলে কারো পক্ষে এভাবে ধ্বংসযজ্ঞ চালানো সম্ভব নয়।

প্রেস বার্তায় আরও দাবি করা হয়, বর্তমান সরকার বিতর্কিত পঞ্চদশ সংশোধনী আইনের মাধ্যমে ভিন্ন ভাষা-ভাষী জাতি ও সম্প্রদায়ের অস্তিত্ব অস্বীকার করেছে। তার কারণে জাতি বিদ্বেষী উগ্র সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী ফণা তুলে সংখ্যালঘু জাতিসমূহের ওপর ছোবল মারতে প্ররোচিত হচ্ছে। তার শিকার হচ্ছে দিনাজপুরের পার্বতীপুরের দুর্বল প্রান্তিক জনগোষ্ঠী সান্তাল গ্রামবাসী। দেশের অন্যত্রও একই চিত্র। গত ১৬ ডিসেম্বর বগাছড়িতে ও ১০ জানুয়ারি রাঙামাটি জেলা সদরে হামলা ধ্বংসযজ্ঞ চালানোর মূলেও রয়েছে একই কারণ।

প্রেস বার্তায়,সান্তাল জনগণের ভূমি রক্ষার ন্যায় সঙ্গত আন্দোলনের প্রতি সমর্থন ও সংহতি ব্যক্ত করেছেন এবং অবিলম্বে হামলা ও লুটপাটে জড়িত দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।

আট সংগঠনের পক্ষে বিবৃতিকারীরা হলেন, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের সভাপতি মাইকেল চাকমা, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের সভাপতি থুই ক্য মারমা, হিল উইমেন্স ফেডারেশনের সভানেত্রী নিরূপা চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম নারী সংঘের সভানেত্রী সোনালী চাকমা, সাজেক নারী সমাজের সভানেত্রী নিরূপা চাকম, সাজেক ভূমি রক্ষা কমিটির সভাপতি জ্ঞানেন্দু চাকমা, ঘিলাছড়ি নারী নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির সভানেত্রী কাজলী ত্রিপুরা ও প্রতিরোধ সাংস্কৃতিক স্কোয়াডের সদস্য সচিব আনন্দ প্রকাশ চাকমা।
–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly