জনসংহতি সমিতির বাঘাইছড়ি শীর্ষ দুই নেতাসহ ৩জন নিহতের ঘটনায় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানসহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা

স্টাফ রিপোর্টার, হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

Follow-up Pic

রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলা শাখার পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির দুই শীর্ষ নেতাসহ তিন জন নিহতের ঘটনায় আজ শুক্রবার(২২ নভেম্বর) বাঘাইছড়ি থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলায় বাঘাইছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সুদর্শন চাকমাসহ ১৭ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার বাঘাইছড়ি উপজেলার সার্বোয়াতলী ইউনিয়নের শিছক কলেজের পাশের একটি চায়ের দোকানে দুর্বৃত্তরা ব্রাশ ফায়ার করলে সন্তু লারমা গ্রুপের পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির উপজেলা শাখার সভাপতি শশাংক মিত্র চাকমা, সাংগঠনিক সম্পাদক নন্দ কুমার চাকমা ও গ্রামবাসী যুধিষ্ঠির চাকমা ঘটনাস্থলে নিহত হন। এ ঘটনায় জনসংহতি সমিতির পক্ষ থেকে প্রতিপক্ষ ইউপিডিএফ ও পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি(এমএন লারমা) কে দায়ী করেছিল। তবে এই দুটি সংগঠনের পক্ষ থেকে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, হত্যাকান্ডের ঘটনার একদিন পর আজ শুক্রবার বিকালে নিহত শশাংক মিত্র চাকমার স্ত্রী ঝর্না চাকমা বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা (নং০২-২২-১১-২০১৩ইং) দায়ের করেছেন। এ মামলায় বাঘাইছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সুদর্শন চাকমাসহ পার্বত্য জনসংহতি সমিতি(এমএন লারমা গ্রুপ) ও ইউপিডিএফের ১৭জন নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ রয়েছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) হাবিবুর রহমান মামলা দায়েরের কথা স্বীকার করে বলেছেন, যাদের নামে মামলা দায়ের করা হয়েছে তাদের গ্রেফতারের স্বার্থে নাম প্রকাশ করা যাচ্ছে না।

এদিকে রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতাল মর্গে নিহত ৩ জনের লাশ ময়নাতদন্তের পর আজ সকালে নিহতের আত্বীয়-স্বজনদের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে। পরে আত্বীয়-স্বজনরা লাশ ইঞ্জিন চালিত নৌকাযোগে বাঘাইছড়ি উপজেলায় নিজ নিজ গ্রামে নেয়ার পর বিকালে স্থানীয় শ্মশানে তাদের সৎকার করা হয়। এসময় নিহতদের আত্বীয় স্বজন ও স্থানীয় গ্রামবাসীরা অংশ গ্রহন করেন।
–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

 

Print Friendly