গুইমারাতে বিদেশী অস্ত্র ও ২৮ রাউন্ড গুলিসহ ৫ জন আটক

 খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি,হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

1

খাগড়াছড়ির গুইমারা উপজেলার জালিয়া পাড়া এলাকায় অস্ত্র ও গুলিসহ কিলিং মিশনের ৫ সদস্য’কে আটক করেছে যৌথ বাহিনী। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার জালিয়াপাড়া চৌরাস্তা থেকে সেনা, পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সদস্যরা যৌথ তল্লাসি চালিয়ে তাদের আটক করে।

পুলিশ জানায়, সোমবার রাতে মোটর সাইকেলে পুলিশের নেমপ্লেট লাগিয়ে ঢাকা থেকে খাগড়াছড়ি’র রামগড়ে  আসে আটককৃতরা। মঙ্গলবার সারাদিন রামগড় থাকার পর বিকেলে তারা চট্টগ্রাম যাওয়ার পথে জেলার মানিকছড়ি উপজেলায় গেলে ২৬ আনসার ও ২৯ আনসার ব্যাটালিয়নের গোয়েন্দা সদস্য তৌহিদুল ইসলাম ও রফিকুজ্জামান গাড়িতে পুলিশের ষ্টিকার দেখে তাদের পরিচয় জানতে চাইলে তারা নিজেদের ডিবি পুলিশের পরিচয় দিয়ে পুনরায় রামগড়ে ফিরে যাওয়ার চেষ্টা করে। এসময় তাদের গতিবিধি কিছুটা সন্দেহজনক হলে গোয়েন্দা সদস্যরা গুইমারা রিজিয়নে সংবাদ দিলে জালিয়াপাড়ায় বিভিন্ন গোয়েন্দা বিভাগের সদস্য, সেনা, পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সদস্যরা যৌথ তল্লাসি চালিয়ে তাদের আটক করে। এ সময় তাদের কাছ থেকে ইউ.এস এর তৈরি মডেলের টু পয়েন্ট টু একটি রিভলবার ও ৬টি রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। পরে তাদের থানায় নিয়ে দেহ তল্লাসী করে আরও ২২ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করে পুলিশ। আটকৃতরা হলেন,  মোঃ শহিদুর এ রহমান (৩৪), পিতা : মোঃ আব্দুর রহমান মন্ডল, মোঃ কামরুজ্জামান (৩৬), পিতা মোঃ আব্দুল হাকিম, মোঃ মেহেদী হাসান (৪৩), পিতা মৃত শামসুল হক, মোঃ গোলাম মাওলা মজুমদার (৪৪), পিতা মোঃ আমান উল্লাহ মজুমদার, মোঃ আজাদ হোসেন (৩০) পিতাঃ হাবিবুর রহমান। তাদের তিনজন ঢাকা ও দুইজন ফেনী এলাকার বাসিন্দা বলে পুলিশ জানিয়েছে।

 পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃতরা জানান, তারা রামগড়ে এক বন্ধুর বাসায় বেড়াতে আসে। সেখান থেকে তারা পাহাড় দেখার উদ্দেশ্য গুইমারাতে আসে। তাদের সাথে রাখা অস্ত্রটি মোঃ শহিদুর এ রহমান নামে লাইসেন্স করা। তার বাবা সাবেক ইনকাম টেক্স কর্মকর্তা ছিলেন।

অস্ত্রটি লাইসেন্স করা উল্লেখ করে পুলিশ সূত্র জানায়, লাইসেন্স করা হলেও নির্দিষ্ট এলাকার বাইরে অস্ত্র নিয়ে চলাফেরা করার আইন নেই। এছাড়াও তাদের মোটর সাইকেলে পুলিশের ষ্টিকার লাগানো থাকলেও তারা কেউই পুলিশের সদস্য না। ধারনা করা হচ্ছে তারা বড় কোন মিশন নিয়ে খাগড়াছড়িতে আসে।

গুইমারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ ইউসুফ মিয়া জানান, আটককৃতদের ব্যাপকভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly