কর্ণফুলী ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগে সংবাদ সন্মেলন

কাপ্তাই প্রতিনিধি, হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

KARNAFULLY DEGREE COLLEGE PIC

কাপ্তাইয়ের কর্ণফুলী ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ এএইচ এম বেলাল চৌধুরীর কর্তৃক অর্থ আত্মসাৎ, দুর্নীতি, ক্ষমতার অপব্যবহার, শিক্ষকদের সাথে অসদাচরণসহ গভর্নিংবডির অনুমোদন ব্যাতিরেকে বিভিন্ন অনিয়মের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সন্মেলনের আয়োজন করা হয়।

কলেজের শিক্ষক মিলনায়তনে শিক্ষক পরিষদের উদ্যোগে আয়োজিত সংবাদ সন্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, কলেজের সহকারী অধ্যাপক এবিএম ছায়েফ উল্ল্যাহ। এসময় উপস্থিত ছিলেন, সহকারী অধ্যাপক কামাল উদ্দিন, বিপুল কান্তি বড়ুয়া, অমলেন্দু পাল, কামাল উদ্দিন আহাম্মেদ, মো: আজিম উদ্দিন,  মো: নাসির উদ্দিন, মো: জাকের হোসাইন, মো: মিজারুল ইসলাম, মুহাম্মদ সাইফুল আলম, মো: জাফর আলম, শামিমা বানু, দীপান্নিতা বড়ুয়া, শ্যামলী দাশ, মিনাক্ষী প্রভা বড়ুয়া,  সোলতানা রাজিয়া, ওমর খৈয়াম চৌধুরী প্রমুখ।

সংবাদ সন্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়,সোনালী ব্যাংক বড়ইছড়ি শাখায় কলেজের নামে (হিসাব নং- ৪১২) থাকা সত্বেও একই শাখায় অধ্যক্ষ কাউকে না জানিয়ে অপর একটি (হিসাব নং-৪১১৭) খুলে কৌশলে লেনদেনসহ অর্থ আত্মসাৎ করছেন। অধ্যক্ষ ভবনের উন্নয়ন কাজে পুরাতন ভবনের টিন, কাঠ, রডসহ নির্মাণ সামগ্রী এবং কয়েকটি গাছ বিধি বহির্ভূতভাবে কেটে অন্যত্র বিক্রি করে প্রায় দেড় লক্ষাধিক টাকা আত্মসাৎ করেন। অধ্যক্ষ বিনা ভাড়ায় আবাসিক সুবিধা নিলেও সরকার কর্তৃক প্রদত্ত বাড়ী ভাড়া নিয়ম অনুযায়ী কলেজ ফান্ডে জমা দেওয়ার কথা থাকলেও এ পদে যোগদানের পর থেকে অধ্যক্ষ তা কলেজ ফান্ডে জমা দেয়নি।

সংবাদ সন্মেলনে আরও বলা হয়, ২০১১-১২ শিক্ষাবর্ষে গভর্নিং বড়ির অনুমোদন ছাড়া ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ হতে বিনা রশিদে ৪০ হাজার টাকা এবং একই ভাবে ২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষে ছাত্র-ছাত্রীদের নিকট থেকে অবৈধভাবে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করে তা আত্মসাৎ করেন।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, এ ধরণের ১৩টি বিষয়ের উপর কলেজ গভর্নিংবডির সভাপতি ও রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসকের নিকট লিখিতভাবে অভিযোগ করা হয়েছে। এছাড়া গত ১১ নভেম্বর  থেকে ২ ডিসেম্বর  পর্যন্ত অধ্যক্ষ ঢাকায় ট্রেনিং এ থেকে ছুটি ভোগ করা সত্বেও ১৫ নভেম্বর  থেকে ২৮ নভেম্বর  পর্যন্ত কলেজের নির্বাচনী পরীক্ষায় অনুপস্থিত থেকেও নির্বাচনী পরীক্ষার সর্বোচ্চ ভাতা গ্রহণ করেন। তাছাড়া কলেজের নামে সরকারী ভাবে ছাত্রীদের জন্য দুটি সেলাই মেশিন ও একটি ল্যাপটপ দেওয়া হলে সেলাই মেশিন এবং ল্যাপটপটি অধ্যক্ষ নিজ বাসায় ব্যবহারের অভিযোগ করা হয়।

সাংবাদ সম্মেলনে, এ ব্যাপারে জরুরী ভিত্তিতে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করা না হলে আগামী ১ ফেব্রুয়ারী থেকে শিক্ষকরা কর্মবিরতি পালনের পাশাপাশি অধ্যক্ষকে কলেজে অনাস্থাসহ অবাঞ্চিত ঘোষনা করা হবে।

এদিকে, এ ব্যাপারে কলেজের অধ্যক্ষ এএইচএম বেলাল চৌধুরীর সাথে যোগযোগ করা হলে তিনি জানান, তার নামে অভিযোগকৃত সকল বিষয় মিথ্যা এবং বানোয়াট। কলেজের শিক্ষকরা নিয়মিত ক্লাস না করে গড় হাজির থাকার বিষয়ে চাপ প্রয়োগ করার ফলে তার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ করা হচ্ছে।

–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly