ঈদের ছুটিতে পর্যটকদের অপেক্ষায় রাঙামাটি পর্যটন

বিশেষ রিপোর্টার,হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

1
ঈদের ছূটিতে পর্যটকদের বরণ নিতে প্রস্তুত পর্যটন নগরী রাঙামাটি। তবে প্রতি বছর রমজানের আগেভাগে হোটেল-মোটেল ও গেস্ট হাউসগুলাতে বুকিং শেষ হয়ে গেলেও এ বছর হোটেল মোটেলগুলোতে আশানরুপ বুকিং দেয়নি পর্যটকরা। তারপরও হোটেল ব্যবসার সাথে সংশ্লিষ্টতা আশা করছেন ঈদের লম্বা ছুটিতে রাঙামাটিতে পর্যটকদের ভিড় বাড়বে।

এদিকে, ঈদের ছুটিতে রাঙামাটিতে বেড়াতে আসা পর্যটকরা যেন কোন ধরনের হয়রানির স্বীকার না হোন সে জন্য পর্যাপ্ত পুলিশ ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, পবিত্র ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ভ্রমন পিপাসু পর্যটকরা ইটপাথুরের শহর ও যান্ত্রিকতার ক্লান্তি দূর করতে থাকতে প্রতি বছর প্রকৃতির রাণী রাঙামাটির অপরুপ সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে ছুটে আসেন। তবে এ বছর ঈদের ছুটিতে হোটেল-মোটেলের বুকিং ভিন্ন চিত্র। কারণ দেশের রাজনৈতিক অস্থিরতা না থাকার সত্বেও এ বছর রাঙামাটিতে হোটেল-মোটেল বুকিং আশারুপ নয়। প্রতিবছর দেখা যায় রমজানের আগেভাগে হোটেল-মোটেলের রুম বুকিং শেষ হয়ে যায়। কিন্তু এবছর হোটেল-মোটেলগুলোতে আশানরুপ বুকিং দেয়নি পর্যটকরা। তবে একমাত্র রাঙামাটি সরকারী পর্যটন মোটেলে পুরোপুরি বুকিং ছাড়া বেসরকারী হোটেল-মোটেল ও গেস্ট হাউসগুলোতে রুম বকুড শতকরা অর্ধেকেরও কম বকুড রয়েছে বলে জানা গেছে।

পর্যটন শিল্পের সাথে জড়িত ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন ঈদ ঘনিয়ে আসলেও হোটেল মোটেলগুলোতে আগের মত বুকিং নেই। ঈদের পর রাজনৈতিক দলগুলোর আন্দোলনের হুমকি আর পুরো রমজান মাস জুড়ে বাচ্ছাদের পরীক্ষা থাকায় বুকিং কম হয়েছে বলে তারা মনে করছেন। তবে ব্যবসায়ীরা আশা করছেন এসবের পরও ঈদে ছুটিতে পর্যটকরা যান্ত্রিক শহরের একটু ক্লান্তি দুর করতে ছুটে আসবেন পাহাড়-হ্রদ ঘেরা মনোরম প্রকৃতির লীলাভুমি রাঙামাটিতে।

রাঙামাটি পর্যটনের আকর্যনীয় স্পটের মধ্যে রয়েছে, পর্যটনের ঝুলন্ত সেতু, শুভলং এর মনোমুগ্ধকর ঝর্ণা, রাজ বন বিহার,জেলা প্রশাসনের বাংলো, বীর শ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফের সমাধি সৌধ, বালুখালী কৃষি খামার, টুক টুক ইকোভিলেজ,সাংপাং রেস্টুরেন্ট এবং আদিবাসী শান্ত সবুজ গ্রাম ও তাদের জীবনযাত্রা। এছাড়াও রয়েছে কাপ্তাই উপজেলায় কর্ণফুলী নদীর তীরে গড়ে উঠা আকর্যনীয় পর্যটন স্পট, কাপ্তাই জল বিদ্যূৎ উৎপাদন কেন্দ্র, কর্ণফূলী পেপার মিলস্ ও কাপ্তাই জাতীয় উদ্যোন।

এদিকে, রাঙামাটি সরকারী পর্যটন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে এবার ঈদ মৌসুমে পর্যটকদের জন্য ৮কোটি ৬০ লক্ষ টাকার ব্যয়ে নির্মিত তিন তারকা মানের আধুনিক পর্যটনের নতুন মোটেল চালু করতে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে অধিকাংশ এ নতুন মোটেল ও পুরাতন মোটেলের রুম বুকড হয়ে গেছে। অপাতত নতুন এ মোটেলে ৫১টি রুমের মধ্যে ২৪টি রুম চালু করা হবে। রুম গুলোর মধ্যে ১৫টি এসি ও ৭টি নন এসি রয়েছে। এ হোটেল কাপ্তাই হ্রদের অপরুপ লেক ভিউ উপলদ্ধি করা ছাড়াও ২শ জনের কনফারেন্স রুম, ১৫০ জন এক সাথে খাওয়াদাওয়া করতে তার ব্যবস্থা, কপি হাউস, ক্যাপসুললিভ, কারপর্কিং এর সুব্যবস্থা রয়েছে। উল্লেখ্য, গত বছর এই নতুন পর্যটন মোটেলের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গ্রীন ক্যাসেলের ব্যবস্থাপক গৌতম দাশ জানান, ঈদের অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার হোটেলের বুকিং কিছুটা কম। সামনে বাচ্চাদের পরীক্ষা ও ঈদের পর আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার হুমকির কারনে হয়তো এবারের ঈদের পর্যটকদের আগম কিছুটা কম।

সুপিয়া হোটেলের সিইও সাইফুল ইসলাম(মুন্না) জানান, এবারের ঈদে শতকরা ৫০ ভাগ রুম বকুড হয়েছে। আশা করছি আগামী কয়েক দিনের মধ্যে বাকী রুম বুকড হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি ভাল থাকলে তাহলে এবারের ঈদে ভাল ব্যবসা করতে পারবো আশা করি। সে জন্য আমরা ভালভাবে প্রস্তুতিও গ্রহন করেছি।

রাঙামাটি সরকারী পর্যটন কমপ্লেক্সের ব্যবস্থাপক আকলাকুর রহমান জানান পর্যটকদের বরন করতে রাঙামাটি সরকারী পর্যটন মোটেল সকল প্রস্তুতি নিয়েছে উল্লেখ করে জানান, পর্যটন মোটেলে ইতোমধ্যে মোটামোটি সকল রুম বুকড হয়েছে। আশা করছি গত বছরের তুলনায় এ বছর দেশের পস্থিতি ভাল থাকলে পর্যটনে ভাল ব্যবসা কতে পারবো। তিনি আরও জানান, এবার ঈদ মৌসমে নতুন আধুনিকমানের নতুন মোটেলটি আগামী ১ আগস্ট উদ্বোধন করা হবে। ইতোমধ্যে পুরাতন মোটেলের পাশাপাশি নতুন মোটেলের সবকটি রুম বকুড হয়ে গেছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল কালাম আজাদ জানান,প্রতি বছর ঈদের ছুটিতে রাঙামাটির সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে পর্যটকদের ভিড় জমে থাকে।বরাবরের মত এবারও ঈদের ছুটিতে রাঙামাটিতে বেড়াতে আসা পর্যটকরা যেন কোন ধরনের হয়রানির স্বীকার না হোন সে জন্য পর্যাপ্ত পুলিশ ব্যবস্থা করা হয়েছে। পাশাপশি রাঙামাটিতে আইন শৃঙ্খলা অবনতি না ঘটে পুলিশ সার্বিকভাবে প্রস্তুত ও সজাগ রয়েছে।
–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly