আদিবাসী নারী নেত্রী বিচিত্রা তির্কীর ধর্ষণকারীদের শাস্তি ও ঢুডু সরেনের হত্যাকারীদের বিচারের দাবীতে ঢাকায়  মানববন্ধন

ডেস্ক রিপোর্ট,হিলবিডিটোয়েন্টিফোর ডটকম

h3

আদিবাসী নারী নেত্রী বিচিত্রা তির্কি-র ধর্ষণকারীদের শাস্তি ও আদিবাসী নেতা ঢুডু সরেন হত্যাকারীদের বিচারের দাবীতে বৃহস্পতিবার ঢাকায় মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বাংলাদেশ আদিবাসী ফেরামে  প্রচার বিভাগের সদস্য সোহেল চন্দ্র হাজং প্রেরিত প্রেস বার্তায় বলা হয়েছে, শাহবাগস্থ জাতীয় জাদুঘরের সামনে ঐক্য ন্যাপ, পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি এবং বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের উদ্যোগে প্রতিবাদী মানববন্ধনে  সভাপতিত্ব করন ঐক্য ন্যাপের সভাপতি প্রবীণ রাজনীতিবীদ পংকজ ভট্টাচার্য। সংহতি বক্তব্য রাখেন ঐক্য ন্যাপের সাধারণ সম্পাদক আসাদুল¬াাহ তারেক, সাংবাদিক ও লেখক আবু সাঈদ খান, বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রানা দাশগুপ্ত, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জীব দ্রং, বাংলাদেশ কলেজ শিক্ষক সমিতির সভাপতি নূর মোহাম্মদ তালুকদার, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক রাজীব মীর, মানবাধিকারকর্মী রাখী ম্রং প্রমুখ। সমাবেশ পরিচালনা করেন জনসংহতি সমিতির সহ-তথ্য ও প্রচার সম্পাদক দীপায়ন খীসা। সমাবেশে সংহতি জানান সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন, জন উদ্যোগ, ওঁরাও ছাত্র সংগঠন, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীস্টান ঐক্য পরিষদ, পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ, হিল উইমেন্স ফেডারেশন, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ,বাংলাদেশ আদিবাসী নারী নেটওয়ার্ক, বাংলাদেশ আদিবাসী ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ, জন উদ্যোগসহ বিভিন্ন সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠন।

ঐক্য ন্যাপের সভাপতি জননেতা পংকজ ভট্টাচার্য সমাপনী বক্তব্যে বলেন, একজন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিকে ধর্ষণের ঘটনাই প্রমাণ করে নিপীড়ক হিসেবে রাষ্ট্রের ভূমিকা কোন পর্যায়ে এসে ঠেকেছে। কেবল ঢুডু সরেন কিংবা বিচিত্র তির্কি-ই নয়, ভূমি দখলকে কেন্দ্র করে কথায় কথায় আজ আদিবাসীদের খুন করা হচ্ছে। তিনি বিচিত্রা তির্কির ধর্ষণ ঘটনায় জাতীয় সংসদে নিন্দা প্রস্তাব উত্থাপন করার দাবী জানান

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যারযের শিক্ষক রাজীব মীর বলেন,রাষ্ট্রের দ্বায়িত্বই হচ্ছে নাগরিকের অধিকার প্রতিষ্ঠা করা, সেখানে আদিবাসীদের ক্ষেত্রে হচ্ছে ঠিক উল্টো, যেখানে রাষ্ট্র নিজেই  নিপীড়ক হয়ে আদিবাসীদের অধিকার হরণ করছে। এভাবে দেশ চলতে পারে না।

h1

বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জীব দ্রং বলেন, রাষ্ট্র এখনো আদিবাসীবান্ধব হয়ে উঠতে পারেনি। তিনি প্রশ্ন রাখেন, রাষ্ট্র কবে আদিবাসীবান্ধব হয়ে উঠবে??

সাংবাদিক আবু সাঈদ খান বলেন, কখনো ধর্মের দোহাই দিয়ে, কখনো জাতীয়তার দোহাই দিয়ে প্রতিনিয়ত ধর্মীয় সংখ্যালঘু এবং আদিবাসীদের উপর নিপীড়ন অব্যাহত রয়েছে। তাই দেশপ্রেমিক এবং সত্যিকার গণতন্ত্রকামী জনগণের ঐক্যবদ্ধ সংগ্রামের মধ্য দিয়েই আদিবাসী অধিকার প্রতিষ্ঠিত হতে পারে। রানা দাশগুপ্ত বলেন,ভূমি দখলের উদ্দেশ্যেই সংখ্যালঘু এবং আদিবাসীদের উপর নিপীড়ন চালানো হয়ে থাকে। সংখ্যালঘু এবং আদিবাসীদের উপর নির্যাতনের বিষয়গুলো বিশেষ আইন দ্বারা বিচার করতে হবে।

–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

Print Friendly